ইসলামি শিক্ষা ও আধ্যাত্মিকতার পুনর্জাগরনে আল্লামা সৈয়দ আহমদ শাহ সিরিকোটি (র.) আজও প্রাতঃ স্মরণীয়

0

আনজুমান ট্রাস্ট’র ব্যবস্থাপনায় হযরত সৈয়্যদ আহমদ শাহ্ সিরিকোটি (রহ.)’র ৬২তম সালানা ওরস মাহফিলে বক্তারা-
ইসলামি শিক্ষা ও আধ্যাত্মিকতার পুনর্জাগরনে আল্লামা
সৈয়দ আহমদ শাহ সিরিকোটি (র.) আজও প্রাতঃ স্মরণীয়
আওলাদে রাসূল, রাহনুমায়ে শরীয়ত ও তরিকত আল্লামা সৈয়দ আহমদ শাহ সিরিকোটি (র.) বাংলাদেশসহ ভারত উপমহাদেশে সিলসিলায়ে আলিয়া কাদেরীয়ার পুনরুজ্জীবন ঘটিয়েছেন। তারঁ আগমনের প্রায় দুইশ বছর আগে বাংলায় কাদেরিয়া সিলসিলার প্রতিনিধি হিসাবে মুরশিদাবাদের সৈয়দ আবদুর রাজ্জাক কাদেরিয়া সুফিধারার প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন। এরপর সিরিকোটি রহমাতুল্লাহি আলাইহি পাকিস্তান-আফ্রিকা-বার্মা হয়ে বাংলাদেশে আগমণ করে কাদেরিয়া তরিকার মুল ধারার প্রচার ও প্রসার ঘটান। একইসাথে তিনি ইসলামের সঠিক রূপরেখার আহলে সুন্নাতের আক্বীদা ও সুফিবাদ প্রসারে জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়া প্রতিষ্ঠা করেন, যে প্রতিষ্ঠান আজ বিশ্বব্যাপী সুনাম অর্জন করেছে। তিনি মূলত এ বাংলা থেকেই ইসলামি শিক্ষা ও আধ্যাত্মিকতার পুনর্জাগরণ ঘটান।
গত ২৩ জুন বুধবার নগরীর ষোলশহরস্থ আলমগীর খানকাহ শরীফে আনজুমান-এ রাহমানিয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া ট্রাস্ট ও জামেয়ার প্রতিষ্ঠাতা আওলাদে রাসুল আল্লামা সৈয়দ আহমদ শাহ সিরিকোটি (র.) এর ওরশ মোবারক উপলক্ষে স্মারক আলোচনায় বক্তারা এ কথা বলেন। তাঁরা আরো বলেন, বাংলাদেশে আল্লামা সিরিকোটি (র.) সফরকাল ছিল জীবনের শেষ ২৩ বছর। প্রথমে রেঙ্গুনে আসা যাওয়ার পথে যাত্রা বিরতিতে এরপর ১৯৪২-১৯৫৮ পর্যন্ত নিয়মিত শীতকালীন সফরে এসে থাকতেন। এই সময়ে তাঁর হাতে হাজার হাজার মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন হয় এবং শরিয়ত-ত্বরিকতের ব্যাপক উন্নতিসহ ইসলামী শিক্ষা বিস্তারে নেতৃত্ব প্রদানের ফলে তাঁর হাতে সুন্নিয়তের পূনর্জীবন ঘটে, যা আজ সত্যনিষ্ঠ নিরপেক্ষ মহল অকপটে স্বীকার করেন। আজো তাঁর হাতে গড়া চট্টগ্রামের জামেয়া-আনজুমান বাংলাদেশের সুন্নিদের নির্ভরতার প্রধান ঠিকানা হিসেবে অব্যাহত আছে।
সিরিকোটি(র.)-এর আন্জুমানের হাতে পরিচালিত হয় শতাধিক মাদরাসা। এছাড়াও ১৯৪২ সনে তাঁর প্রতিষ্ঠিত রাউজান দারুল ইসলাম মাদরাসা, যা বর্তমানে আনজুমান ট্রাস্ট’র হাতে পরিচালিত। এভাবে সিরিকোটি (র.) এর হাতে পূনরুর্জীবন লাভ করেছে আরো বহু প্রতিষ্ঠান। বক্তারা বলেন, সিরিকোটি (র.) এর হাতে কাদেরিয়া ত্বরিকায় যেমন নতুন জোয়ার আসে, তেমনি এ দেশবাসী লাভ করে “মসলকে আলা হযরত’’ নামক সুন্নিয়তের বিশুদ্ধতম ধারার সন্ধান। আনজুমানের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট আলহাজ্ব মোহাম্মদ মহসিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত স্মরক আলোচনায় সারগর্ভ বক্তব্য রাখেন আনজুমান’র সেক্রেটারি জেনারেল আলহাজ্ব মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন, আনজুমানের অ্যাডিশনাল জেনারেল সেক্রেটারি আলহাজ্ব সামশুদ্দীন, অ্যাসিস্টেন্ট জয়েন্ট সেক্রেটারি আলহাজ্ব মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন সাকের, প্রেস এন্ড পাবিলিকেসন্স সেক্রেটারি অধ্যাপক কাজী সামশুর রহমান, জামেয়ার চেয়ারম্যান অধ্যাপক দিদারুল ইসলাম, গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব পেয়ার মোহাম্মদ।
হুজুর সিরিকোটি রহমাতুল্লাহি আলাইহির জীবন ও কর্মের উপর আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়ার অধ্যক্ষ আল্লামা মুফতি সৈয়দ অছিয়র রহমান, আনজুমান রিচার্স সেন্টারের মহাপরিচালক আল্লামা এম.এ.মান্নান, আহলে সুন্নাত ওয়াল জামা’আতের চেয়ারম্যান আল্লামা কাজী মঈনুদ্দিন আশরাফী, জামেয়ার শায়খুল হাদিস আল্লামা হাফেজ সোলায়মান আনসারী, মুহাদ্দিস আল্লামা হাফেজ আশরাফুজ্জমান আলকাদেরী, অধ্যক্ষ আল্লামা বদিউল আলম রিজভী, জামেয়া দায়েম নাজির জামে মসজিদের খতিব আল্লামা আবুল আসাদ জুবায়ের রজভী, গবেষক অধ্যাপক সৈয়দ জালাল উদ্দিন আল আজহারী, গাউসিয়া কমিটির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আনোয়ারুল হক, মহাসচিব শাহজাদ ইবনে দিদার, যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট মোছাহেব উদ্দিন বখতিয়ার।
মাওলানা হাফেজ আনিসুজ্জমানের সঞ্চলনায় অনুষ্ঠিত স্মারক আলোচনায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, দক্ষিণ জেলার সভাপতি আলহাজ্ব কমরুদ্দিন সবুর, উত্তর জেলার সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) জমির উদ্দিন মাস্টার, গাউসিয়া কমিটি চট্টগ্রাম নগরের সভাপতি আলহাজ্ব মাহবুব আলম, মহানগর সিনিয়র সহ-সভাপতি আলহাজ্ব তাসকির আহমদ, উত্তর জেলার সম্পাদক অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী, দক্ষিণ জেলার সম্পাদক হাবিব উল্লাহ মাস্টার, মহানগর সম্পাদক আলহাজ্ব মোহাম্মদ আবদুল্লাহ, আলহাজ্ব মনোয়ার হোসেন মুন্না, মাওলানা মোহাম্মদ ইলিয়াছ আলকাদেরী প্রমুখ।
সালানা ওরস মোবারক উপলক্ষে দিনব্যাপী কর্মসূচীর মধ্যে ছিল-সকাল ৮টা থেকে খতমে কোরআন মাজীদ, খতমে বোখারী শরীফ, খতমে মজমুয়ায়ে সালাওয়াতে রাসুল (দঃ) ও পবিত্র গেয়ারভী শরীফ, বা’দ আছর হতে হযরাতে মাশায়েখ কেরামের জীবনী আলোচনা এবং সালাত ও সালাম পরিবেশন করেন জামেয়ার মুহাদ্দিস মাওলানা মুহাম্মদ জসিম উদ্দিন আযহারী।
অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন জামেয়ার আরবী প্রভাষক মাওলানা মুহাম্মদ ইলিয়াছ আলকাদেরী, শেষে জামেয়ার অধ্যক্ষ আল্লামা মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ অছিয়র রহমান বাংলাদেশসহ সমগ্র মুসলিম জাহানের শান্তি কামনা করে দো’য়া ও আখিরী মুনাজাত করেন। বা’দ নামাজে এশা তবারুক বিতরণের মাধ্যমে মাহফিল’র সমাপ্তি হয়।
শেয়ার
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •