সুদ বা অবৈধ পন্থায় আয় করা টাকা মসজিদ মাদরাসায় দান করা যাবে কিনা?

0

হাফেজ মাওলানা হুমায়ুন কবির
জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া (কামিল) মাদরাসা
চট্টগ্রাম।
প্রশ্ন: সুদ বা অবৈধ পন্থায় আয় করা টাকা দিয়ে মসজিদ মাদরাসায় দান করলে ঐ দানের সাওয়াব পাওয়া যাবে কিনা?
উত্তর: সুদ একটি মারাত্মক অপরাধ। যা আল্লাহ্ তা‘আলা হারাম ঘোষণা করেছেন। ক্বোরআনে পাকে আল্লাহ তা‘আলা এরশাদ করেছেন- اَحَلُّ اللهُ الْبَيْعَ وَحَرَّمَ الرِبوا অর্থাৎ আল্লাহ্ ব্যবসাকে হালাল করেছেন এবং সুদকে হারাম করেছেন। [সূরা বাক্বারা, আয়াত-২৭৫] অপর আয়াতে এরশাদ হয়েছে- يايها الذين امنوا لاتأكلوا الربوا অর্থাৎ হে ঈমানদারগণ তোমরা সুদ খেয়োনা। [সূরা আলে ইমরান, আয়াত-১৩০] পবিত্র হাদীসে রসূলে পাক সাল্লাল্লাহু তা‘আলা আলায়হি ওয়াসাল্লাম আরো এরশাদ করেন لا صدقة من غلول অর্থাৎ অবৈধ ও খেয়ানতের মাল দ্বারা ছাদকা করা অবৈধ।
আরো এরশাদ করেছেন-الربا سبعون جزءًا ايسرها ان ينكح الرجل امه الحديث.. অর্থাৎ সুদের (পাপের) ৭০টি স্তর রয়েছে যার সর্ব নি¤œতম স্তর হলো স্বীয় মায়ের সাথে যেনা করা (ইবনে মাযাহ-২২৭৪ ও মিশকাত শরীফ, ২৮২৬ নং হাদিস) সুদি কারবারের বিষয়ে আল্লাহ্ কঠোর শাস্তির কথা ঘোষণা করেছেন। তাই সুদ বা অবৈধ পন্থায় অর্জিত টাকা-পয়সা মসজিদ, মাদরাসা ও ধর্মীয় অনুষ্ঠান বা কাজে প্রদান করা জায়েয নয়। বরং হারাম। সুদ, ঘুষ ও আত্মসাত কৃত টাকা যার থেকে নিয়েছে তার নিকট ফেরৎ দিতে হবে যদি তা সম্ভবপর না হয়, তারপক্ষে গরীব মিসকিনকে দান করে দিতে হবে। কিন্তু সাওয়াবের আশা-প্রত্যাশা করা যাবে না। [সুনানে তিরমিযী, ইবনে মাযাহ্, ও আমার রচিত যুগ জিজ্ঞাসা]
শেয়ার
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •