জামাতে মুসল্লী বেশী হওয়ায় ইমাম সাহেবের এক কদম পিছনে নামাজ আদায় করলে হবে কিনা?

0

মুহাম্মদ আবু কাউসার সোহেল-
উত্তর সর্ত্তা, রাউজান, চট্টগ্রাম।
প্রশ্ন: এশার জামাতে মুসল্লী বেশী হওয়ায় ইমাম সাহেবের এক কদম পিছনে নামাজ আদায় করায় জনৈক ব্যক্তি এটাকে মাকরূহে তাহরিমী ফতোয়া দিয়েছেন। তার ভাষ্যমতে খানকাহ্ শরীফ সংলগ্ন মাঠ থাকা সত্ত্বেও কেন ইমামের আড়াই হাত পিছনে না দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় করা হল? উল্লেখ্য, মাঠে তাৎক্ষণিক নামায আদায়ের ব্যবস্থা করা সহজ ছিল না।
উত্তর: উপরোক্ত বিষয়ে ইসলামী শরীয়তের মাসআলা হলো জামাতে মুক্তাদি যদি একজন হয় তবে সে ইমামের বরাবর ডান পার্শ্বে দাঁড়াবে। তার জন্য বামে বা পেছনে দাঁড়ানো মাকরূহ। দুই জন হলে ইমামের পিছনে দাঁড়াবে তখন ইমামের বরাবর দাড়ানো মাকরূহে তানযীহি। আর দু’জনের অধিক হলে তখন ইমামের পার্শ্বে দাঁড়ানো মাকরূহে তাহরীমী। [দুররে মুখতার, ১ম খন্ড, ৩৮১নং পৃষ্ঠা]
যদি দু’জনের অধিক মুক্তাদি ইমামের বরাবর ডানে-বামে দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় করে তখন মাকরূহে তাহরীমী হওয়ার কারণে ইমাম ও মুক্তাদি সকলে ওই নামায পুনরায় পড়তে হবে। [ফতওয়ায়ে রজভীয়্যাহ্, ৩য় খন্ড, পৃ. ৩২৩]
তবে মুসল্লী বেশি হওয়ার কারণে স্থান সংকুলন না হওয়ায় ইমামের সামনে যাওয়া আর মুক্তাদির পেছনে দাঁড়ানোর জায়গা না থাকে এবং মসজিদের বাইরেও দাড়ানোর কোন সুযোগ না থাকে তখন একান্ত বাধ্য হয়ে বিশেষ প্রয়োজনে ইমামের সামান্য পিছনে ডানে-বামে কাতার হয়ে দাড়িয়ে নামাজ আদায় করবে। কিন্তু ভিতরে ও বাইরে জায়গা ও সুযোগ থাকা সত্ত্বেও এভাবে জমাত আদায় করা মাকরূহে তাহরীমা। [দুররে মুখতার, ফতোয়ায়ে রজভিয়া, মু’মিন কি নামাজ ইত্যাদি]  [মাসিক তরজুমান, রমজান সংখ্যা-১৪৪২ হিজরি]
শেয়ার
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •