চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী জশনে জুলুসে ফ্রান্সে মহানবীর ব্যাঙ্গচিত্র প্রকাশে তীব্র নিন্দা

0

চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী জশনে জুলুসে লাখো মানুষের ঢল-
ফ্রান্সে মহানবীর ব্যাঙ্গচিত্র প্রকাশের বিরুদ্ধে মুসলিম বিশ্ব ক্ষুদ্ধ ও তীব্র নিন্দা -বক্তাগণ >
পবিত্র ঈদে মীলাদুন্নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উপলক্ষে আনজুমান-এ রহমানিয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া ট্রাস্ট কর্তৃক ঐতিহ্যবাহী জসনে জুলুস স্বাস্থ্যবিধি মেনে গত ৩০ অক্টোবর সকাল ৮ টায় চট্টগ্রাম জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলীয়া ময়দান থেকে ট্রাস্টের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট আলহাজ্ব মোহাম্মদ মহসিন’র নেতৃত্বে বের করা হয়। জুলুসটি জামেয়া ময়দান থেকে বিবিরহাট, মুরাদপুর থেকে হাইওয়ে রোড ধরে ষোলশহর ২ নং গেইট ঘুরে পুনরায় মুরাদপুর হয়ে জামেয়া জুলুস ময়দানে মাহফিলে মিলিত হয়।
 এতে আনজুমান’র সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট আলহাজ্ব মোহাম্মদ মহসিন মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন। মাহফিলে সিরিককোট দরবারে আলীয়া কাদেরীয়ার সাজ্জাদানশীন মুর্শিদে বরহক আওলাদে রাসূল আল্লামা সৈয়্যদ মুহাম্মদ তাহের শাহ্ (ম.জি.আ.) ভিডিও কন্ফারেন্সের মাধ্যমে বাংলাদেশসহ সমগ্র বিশ্বের মুসলিম উম্মার শান্তি কামনা করে মুনাজাত করেন।
এর আগে আল্লামা সৈয়্যদ মুহাম্মদ সাবির শাহ্ (ম.জি.আ.) ও ছাহেবজাদা আল্লামা সৈয়্যদ মুহাম্মদ আহমদ শাহ্ (ম.জি.আ.) ভিডিও কন্ফারেন্স-এ বক্তব্য রাখেন। মাহফিলে ভিডিও কনফারেন্সে আওলাদে রাসুল আল্লামা সৈয়্যদ মুহাম্মদ সাবির শাহ্ (ম.জি.আ.) বলেন, মহান আল্লাহ তাঁর প্রিয় হাবীবকে এদিনে পৃথিবীতে প্রেরণ করে সৃষ্টি জগতের প্রতি এহসান করেছেন। আর এ এহসানের শোকরিয়া স্বরূপ মহান আল্লাহর নির্দেশিত পন্থায় পবিত্র জশ্নে ঈদে মিলাদুন্নবী পালন করে আসছে মুসলিম সম্প্রদায়। আমাদের হযরাতে কেরাম বিশেষ করে আল্লামা সৈয়দ মুহাম্মদ তৈয়্যব শাহ্ (র.) চট্টগ্রাম থেকে এ দিনের সম্মানে জশনে জুলুসের প্রবর্তন করে যে অনুগ্রহ করেছেন এর জন্য তাঁকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি। বৈশ্বিক মহামারি করোনা পরিস্থিতিতে আজকে লাখো ধর্মপ্রাণ মুসলমান জুলুসে অংশগ্রহণ করে হুজুর কেবলার মিশনের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করেছেন। এর জন্য তিনি আনজুমান, গাউসিয়া কমিটি ও সুন্নি মুসলমানদের ধন্যবাদ ও মোবারকবাদ জানান।
মাহফিলে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মুহাম্মদ মুসলেম উদ্দিন আহমেদ, ঢাকা (দক্ষিণ) মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ আবু আহমেদ মান্নাফী, আনজুমান ট্রাস্ট’র সেক্রেটারী জেনারেল আলহাজ মুহাম্মদ আনোয়ার হোসেন, কেন্দ্রীয় গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশ’র চেয়ারম্যান আলহাজ পেয়ার মোহাম্মদ। মহফিলে বিশেষ অতিথি সংসদ সদস্য মুসলিম উদ্দিন আহমদ ফ্রান্সে বিশ্ব মানবতার মুক্তিদূত হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলায়হি ওয়াসাল্লাম এর ব্যাঙ্গচিত্র প্রকাশ করায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে আগামী সংসদ অধিবেশনে নিজেই নিন্দা প্রস্তাব আনবেন বলে মাহফিলে উপস্থিত লাখো ধর্মপ্রাণ মুসলসানদের আশ্বস্থ করেন।
ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মান্নাফী ফ্রান্সের ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে ইসলাম বিরোধী যেকোন ষড়যন্ত্র মোকাবেলায় মুসলমানদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একজন ধর্মভীরু মুসলিম নেতা, তার মাধ্যমে বাংলাদেশ ফ্রান্সের নিন্দা জানাবে। একইসাথে তিনি পীরভাই-বোনদের হুজুর কেবলার প্রদর্শিত পথ ও মতে চলার আহবান জানান। সভাপতির বক্তব্যে আলহাজ্ব মুহাম্মদ মহসিন বলেন, হুজুর কেবলার অনুপস্থিতিতে করোনাকালে জুলুসে লাখো মানুষের উপস্থিতিইু প্রমান দেয়, জশনে জুলুসে ঈদে মিলাদুন্নবী সাল্লাল্লাহু আলায়হি ওয়াসাল্লাম-এর বিরুদ্ধে কোন ষড়যন্ত্র টিকে থাকতে পারবেনা। যারা নবীদ্রোহী তাদের অস্তিত্ব সুন্নি মুসলমানদের ঐক্যের বানে ধ্বসে যাবে। জুলুসের অনুমতি দেয়ায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, পুলিশ প্রশাসন, সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসকসহ সাংাদিকদের প্রতি তিনি কৃতজ্ঞতা জানান।
এতে উপস্থিত ছিলেন- আনজুমান ট্রাস্ট’র এডিশনাল জেনারেল সেক্রেটারী আলহাজ্ব মুহাম্মদ সামশুদ্দিন, জয়েন্ট জেনারেল সেক্রেটারী আলহাজ্ব মুহাম্মদ সিরাজুল হক, এ্যাসিস্টেন্ট জেনারেল সেক্রেটারী আলহাজ্ব এস.এম. গিয়াস উদ্দিন শাকের, ফাইন্যান্স সেক্রেটারী আলহাজ্ব মুহাম্মদ সিরাজুল হক, প্রেস এন্ড পাবলিকেশন সেক্রেটারী প্রফেসর কাজী শামসুর রহমান, জামেয়ার চেয়ারম্যান প্রফেসর মুহাম্মদ দিদারুল ইসলাম, আনজুমান সদস্য মুহাম্মদ সাহাজাদ ইবনে দিদার, মুহাম্মদ আনোয়ারুল হক, মুহাম্মদ কমর উদ্দিন সবুর, মুহাম্মদ আবদুল হাই মাসুম, তসকীর আহমেদ, গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশ, চট্টগ্রাম মহানগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলার কর্মকর্তা-সদস্যবৃন্দ।
এর আগে বক্তব্য রাখেন- এড. মুহাম্মদ মোছাহেব উদ্দিন বখতিয়ার, উপাধ্যক্ষ ড. মাওলানা মুহাম্মদ লিয়াকত আলী, আল্লামা হাফেজ মুহাম্মদ সোলাইমান আনসারী, মুফতি কাজী মুহাম্মদ আবদুল ওয়াজেদ, অধ্যক্ষ আল্লামা আবদুল আলিম রেজভী, উপাধ্যক্ষ আল্লামা আবুল কাসেম মুহাম্মদ ফজলুল হক, আল্লামা হাফেজ মুহাম্মদ আশরাফুজ্জামান আলকাদেরী, আল্লামা কাজী মুহাম্মদ মঈন উদ্দনী আশরাফী, অধ্যক্ষ মাওলানা আবু তৈয়ব চৌধুরী, অধ্যক্ষ মাওলানা মুহাম্মদ বদিউল আলম রেজভী, মাওলানা আবু সুফিয়ান আবেদী আলকাদেরী, ড. মাসুম চৌধুরী প্রমুখ।
বক্তারা বলেন- নবীজি সাল্লাল্লাহু আলায়হি ওয়াসাল্লাম সমগ্র সৃষ্টির কল্যান হয়ে এই ধরার বুকে এসেছিলেন অথচ হতভাগারা তাঁর সম্মানে আঘাত করে নিজেদের ধ্বংস ডেকে আনছে। ফ্রান্স রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় নবী সাল্লাল্লাহু আলায়হি ওয়াসাল্লাম’র যে অবমাননা করে যাচ্ছে এর জবাবে তাদের পণ্য বর্জনসহ সব ধরনের সম্পর্ক ছিন্ন করতে হবে। এ জন্য ও.আই.সি. আরব লীগসহ মুসলিম বিশ্বের নেতৃবৃন্দের সাহসী ভূমিকা রাখতে হবে।
অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন-আনজুমান সদস্য মুহাম্মদ আবদুল হামিদ ও হাফেজ মাওলানা মুহাম্মদ আনিসুজ্জামান। পরিশেষে, মহামারী করোনা হতে আরোগ্য লাভ, বাংলাদেশসহ মুসলিম বিশ্বের শান্তি, অগ্রগতি ও কল্যাণ কামনায় আখেরী মুনাজাত করেন জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলীয়ার অধ্যক্ষ আল্লামা মুফতি ছৈয়দ মুহাম্মদ অছিয়র রহমান। মাহফিল শেষে জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আবুল আসাদ মুহাম্মদ জুবাইর রেজভীর খেতাবতে নামাজে জুমা অনুষ্ঠিত হয়।