প্রশ্ন : মৃত ব্যক্তির গোসল ও দাফন-কাফন বিষয়ে জানতে আগ্রহী

0

প্রশ্ন করেছেন-মুহাম্মদ সেলিম উদ্দীন (কাদেরী)
হযরত শাহ্চান্দ আউলিয়া কামিল মাদ্রাসা,পটিয়া, চট্টগ্রাম।

প্রশ্ন : মৃত ব্যক্তির গোসল ও দাফন-কাফন বিষয়ে জানতে আগ্রহী।

উত্তর: যে ব্যক্তি মৃত ব্যক্তিকে গোসল দেবে, সে প্রথমে ওযু করে নেবে। গোসলের স্থানের চারিদিকে পর্দার ব্যবস্থা করে নেবে। কুল (বড়ই) পাতার সিদ্ধ পানি দ্বারা মৃত ব্যক্তিকে গোসল করাবে। এটা না পেলে সাদা পানি ব্যবহার করতে পারবে। প্রথমে মৃত ব্যক্তি পুরুষ হলে তাকে খাটের উপর শায়িত করে নাভী হতে হাঁটু পর্যন্ত কাপড় দিয়ে ঢেকে দেবে। তারপর পায়খানা-প্র¯্রাবের স্থান এক খন্ড কাপড় দ্বারা মসেহ করবে। মৃত ব্যক্তির গুপ্তস্থানের দিকে একেবারেই দৃষ্টি করবে না। তারপর মায়্যেতকে ওযূ করাবে। ওযূর মধ্যে প্রথমে মুখ, তারপর হাত কুনুই পর্যন্ত ধৌত করবে। অতঃপর মাথা মসেহ করবে। এরপর উভয় পা ধৌত করবে। মুখ ও নাকের ভিতর পানি দেবে না। কাপড় ভিজিয়ে মুখ ও নাকের ভিতর মুছে নেবে। মাথা ও দাঁড়ি সাবান দ্বারা ধৌত করবে। মৃতকে বাম কাত করে শুইয়ে ডান পার্শ্বে পানি ঢালবে, পরে ডান কাত করে বাম পার্শ্বে পানি ঢালবে যাতে সমস্ত শরীর ভাল মতে ধোয়া হয়। তারপর মৃতকে হেলান দিয়ে বসিয়ে আস্তে আস্তে পেটে চাপ দিবে। এত নাপাকী/মল বের হলে ধুয়ে ফেলবে। এজন্য ওযূ বা গোসল পুনরায় করাতে হবে না। গোসলের পর শুকনা কাপড় দিয়ে শরীর মুছে ফেলবে। নখ কাটবে না। দাঁড়ি ও মাথায় চিরুনী ব্যবহার করবে না। মাথায় ও দাঁড়িতে আতর/গোলাপ লাগাবে। সাজ্দার জায়গায় কাপুর লাগাবে। পুরুষকে পুরুষ লোক দ্বারা এবং স্ত্রী লোককে মহিলা/স্ত্রী লোক দ্বারা গোসল দিতে হয়, কিন্তু নাবালেগকে পুরুষ/মহিলা উভয়েই গোসল দিতে পারবে। স্বামী স্ত্রীকে গোসল দিতে পারবে না। স্বামী মৃত স্ত্রীকে দেখতে ও কবরে নামাতে পারবে এবং স্ত্রীর খাট বহন করতে পারবে। পুরুষ মৃতের কাফনের কাপড় তিনখানা এবং মেয়ে লোকের জন্য পাঁচখানা কাফনের কাপড় দ্বারা কাফন দেয়া সুন্নাত। পুরুষের জন্য ১. লেফাফা, ২. ইযার ও ৩. কামীস এবং মহিলাদের জন্য ১. পিরহান, ২. ইযার, ৩. ওড়না বা সেরবন্দ, ৪. লেফাফা, ৫. সীনাবন্দ।

যেভাবে কাফনের কাপড় পড়াতে হবে :পুরুষের জন্য খাটের উপর প্রথমে লেফাফা, লেফাফার উপর ইযার এবং ইযারের উপর কামিস অর্ধেক এমনভাবে বিছাবে যাতে মৃতকে কামিসের উপর রাখলে অবশিষ্টাংশ মাথার উপর দিয়ে আনলে বরাবর হয়ে গায়ে লাগে। ইযারকে প্রথমে বামদিক হতে জড়িয়ে, পরে ডান দিক হতে জড়াবে, তারপর লেফাফাও বামদিক হতে জড়িয়ে, পরে ডান দিকে হতে জড়াবে, তারপর লেফাফাও বামদিক হতে জড়িয়ে, পরে ডান দিক হতে জড়াবে। কাফন খুলে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকলে মাথা, বুক ও পায়ের নিকট সুতা দ্বারা বেঁধে দেবে। স্ত্রী লোকের ক্ষেত্রে প্রথমে সীনাবন্দ, তারপর লেফাফা, তারপর ইযার অতঃপর পিরহান বিছিয়ে মৃতকে খাটের ওপর শোয়াবে। প্রথমে পিরহান পরাবে, মাথার চুলগুলি ২ (দুই) ভাগ করে উভয় কাঁধের দিক হতে পিরহানের উপর রাখবে। আর ইযারকে বাম দিক হতে জড়িয়ে পরে ডান দিক হতে জড়াবে। তারপর লেফাফাও এইরূপে জড়াবে। সর্বশেষ সীনাবন্দ জড়াবে। কাফনের উপর আতর-গোলাপ লাগাবে।

দাফন: মৃত ব্যক্তিকে কবরে রাখা- প্রথমে কবরের মধ্যে মৃত ব্যক্তির দুইজন পরহেযগার নিকটতম আত্মীয় নেমে দাঁড়াবে, উপর হতে অন্য লোক মৃতকে ধরে তাঁদের হাতে দেবে। কবরে নামানোর সময় নিচের দো’আ পড়বে-بسم الله وعلى ملّة رسول الله- উচ্চারণ: বিসমিল্লাহ্ ওয়া আ’লা মিল্লাতি রাসূলিল্লাহ।
মৃতের মাথা উত্তর দিকে ক্বেবলামুখী করে রাখবে। স্ত্রী-লোককে কবরে নামানোর সময় কবরের চতুর্দিকে পর্দা করতে হবে। মৃত স্ত্রী লোককে কবরে নামানোর জন্য যাদের সঙ্গে বিবাহ জায়েয নেই, তাদের কেউ নামবে। তাদের কেউ না থাকলে ঈমানদার পরহেযগার লোক কবরে নামবে। এটাই মাসনুন তরিকা মৃত ব্যক্তিকে গোসল, কাফন ও দাফনের।
[গাউসিয়া তারবিয়াতী নেসাব ও যুগ জিজ্ঞাসা- আনজুমান ট্রাস্ট প্রচার-প্রকাশনা বিভাগ]