কবর জিয়ারত বা দো’আ-মুনাজাত করার জন্য পশ্চিম মুখি হওয়া শর্ত কিনা? দেখা যায়, জিয়ারত করে কিছু লোক মুনাজাত-এর সময় পশ্চিম দিকে ফিরে যায়। বিস্তারিত জানানোর আবেদন রইল।

0

প্রশ্ন করেছেন মুহাম্মদ তানজিবুর রহমান রিয়াদ-
বাকলিয়া কলেজ, চট্টগ্রাম।

প্রশ্ন: কবর জিয়ারত বা দো’আ-মুনাজাত করার জন্য পশ্চিম মুখি হওয়া শর্ত কিনা? দেখা যায়, জিয়ারত করে কিছু লোক মুনাজাত-এর সময় পশ্চিম দিকে ফিরে যায়। বিস্তারিত জানানোর আবেদন রইল।
উত্তর: কবর জিয়ারতের প্রাক্কালে কবরের পশ্চিম দিকে দাঁড়িয়ে কবরবাসীকে সামনে নিয়ে পূর্বদিকে মুখ করা শরিয়তের দৃষ্টিতে উত্তম ও মুস্তাহাব। এমনিভাবে মুনাজাতের সময় ও কবরবাসীর চেহারার দিকেই মুখ করে দাঁড়ানো উত্তম। [আলমগীরি ও জা’আল হক]

যদি এভাবে দাঁড়ানো সম্ভবপর না হয় তবে স্বীয় সুযোগ-সুবিধা অনুযায়ী দোয়া মুনাজাত করবে। মুমিন-নর-নারী যারা কবরবাসী হয়েছেন তাদের প্রতি জীবিতদের জন্য শ্রদ্ধা, ভালোবাসা অপরিহার্য বিষয়। ইসলামী আক্বিদা বা বিশ্বাস হলো ‘মৃত্যু’ হচ্ছে লোকান্তর ও এক জগত হতে অন্য এক জগতে প্রস্থান হওয়া। সুতরাং কবরে শায়িত মুসলমানের প্রতি সম্মান প্রদর্শনের নিমিত্তে সে দিকে মুখ করে দাঁড়ানো ও জিয়ারত করা মুস্তাহাব হিসেবে বিবেচিত।

অতএব, কবর জিয়ারতকালে কেবলামুখী হয়ে মুনাজাত করতে হবে- ইসলামী শরিয়তে এ ধরণের কোন শর্ত বা বাধ্যবাধকতা নাই। কারণ ইসলামী শরিয়তে পশু জবাহ করা ও নামাযের ক্ষেত্রেই আমাদের জন্য পশ্চিম দিকে অবস্থিত বায়তুল্লাহ্ তথা পবিত্র কাবা শরীফকে কেবলা/ দিক হিসেবে নির্ধারণ করা হয়েছে। সুতরাং কবর জিয়ারতের সময় কবরমুখী হয়ে মুনাজাত করতে পারবে না বা পশ্চিম দিকে মুখ করতে হবে অথবা এর ফলে কাবা শরীফের প্রতি অসম্মান প্রদর্শন করা হবে ইত্যাদি ধারণা করার কোন অবকাশ নাই। বরং জিয়ারত ও মুনাজাতকালে সুগোয হলে শরিয়তের আলোকে মৃত ব্যক্তির চেহারার দিকে ফিরে জিয়ারত ও মুনাজাত করা জিয়ারতের আদব। [ফতোয়ায়ে হিন্দিয়া ও যুগজিজ্ঞাসা ইত্যাদি]