মুরিদের উদ্দেশে আল্লামা সিরিকোটি রাহমাতুল্লাহি তা‘আলা আলায়হি

0

মুরিদের উদ্দেশে আল্লামা সিরিকোটি রাহমাতুল্লাহি তা‘আলা আলায়হি 

শাহেনশাহে সিরিকোট কুতুবুল আউলিয়া আল্লামা হাফেজ ক্বারী সৈয়্যদ আহমদ শাহ্ সিরিকোটি রাহমাতুল্লাহি তা‘আলা আলায়হি প্রেরিত চিঠিতে তরীকত সম্পর্কে কিছু গুরুত্বপূর্ণ বাণী সন্নিবেশ করেছিলেন। সে সময় দু’জন বিশিষ্ট মুরিদ আন্দরকিল্লার সৈয়দ আহমদ ও আলহাজ্ব উজির আলী সওদাগরের নিকট এ গুরুত্বপূর্ণ চিঠি পাঠানো হয়েছিল। ওই চিঠির গুরুত্বপূর্ণ বাণী অনুবাদ করেছেন আল্লামা মুফতী কাজী মুহাম্মদ আবদুল ওয়াজেদ। পাঠকের জন্য তা নিম্নে উপস্থাপন করা হল।
چونكه ذات شيخ راكردى قبول- هم فد ادر داتش امد هم رسول

যখন তুমি পীরের অস্তিত্বকে গ্রহণ করবে
তখন ঐ সত্তার মাঝে ফানা হয়ে রসূলও লাভ করবে।
অর্থাৎ- পীরের ভক্তি ও অনুসরণই যখন মুরিদের মাঝে চূড়ান্ত হয়, তখন ওই ভক্তি ও অনুসরণ আল্লাহ্-রসূলের ভক্তি এবং অনুসরণে উসিলা হয়ে যায়।
তরীকতের মৌলিক বিষয় হচ্ছে ‘ফানা ফিস্ শায়খ’ তথা পীরের মধ্যে ফানা হওয়ার মত উন্নত স্তর। এটাকে বাদ দিয়ে হুযূর সাল্লাল্লাহু তা’আলা আলায়হি ওয়াসাল্লাম’র নৈকট্য অর্জন এবং আল্লাহ্র নিকট পৌঁছা সম্ভবপর নয়। এ স্তরে পীরের ধ্যান হাসিল হয় ও পীরের সাথে রূহানী সাক্ষাৎ ঘটে এবং হুযুর সাল্লাল্লাহু তা’আলা আলায়হি ওয়াসাল্লাম-এর পবিত্র দর্শনও লাভ করে। আর তরীকতের গুপ্ত রহস্যাদি উম্মেষের কথা-বার্তা হয়।
قرب جانى را بعد مكانى نيست
‘‘প্রাণের নৈকট্যের জন্য স্থানের দূরত্ব (ধর্তব্য) নয়’’ আশ্চর্যাদির প্রকাশ এ স্তরে (ফানা ফিস শায়খে) ভ্রমণকারীর ভাগ্যে জুটে। তরীকতে আমিত্ব, অহঙ্কার, ঝগড়া-ফ্যাসাদ সবই হারাম। তরীকতে ন¤্রতা, কাকুতি-মিনতী, ভীরুতা ধারণ করা ফরজ। আল্লাহ্ তা’আলার সৃষ্টিকুল হতে নিজেকে ছোট মনে করা জরুরী।
كار كن كا بكذ اراز گفاط- كه درين راه كار با يد كار
বিনাবাক্যে নীরবে কাজ কর, এই পথে (তরীকতে) কাজ কর, অনর্থক কথা বলো না, এতে মূল্যবান সময় নষ্ট হয়। পরস্পরের মাঝে হৃদ্যতা ও ঐক্য কায়েম রাখ, একে অপরের সাথে হিংসা-বিদ্বেষ রাখিও না। তবেই তোমাদের সাফল্য আসবে।
অনৈক্যের কারণে শত্রুদের সুযোগ হয়। শয়তান জাল বিছিয়ে রেখেছে। সহজ-সরল মুসলমানদের ভ্রান্তপথে ধাবিত করছে। এ কারণে অনৈক্যের দ্বারা এ বড় উদ্দেশ্য এবং মহান নিয়ামতের অনেক ক্ষতি সাধন হবে। সামান্য কথায় কথায় অনৈক্য সৃষ্টি কর না।
তরীকতের ময়দানে নম্রতা, কাকুতি-মিনতী, হৃদ্যতা এবং দ্বীনের খিদমতের দ্বারা আল্লাহ্-রসূল এবং আপন পীর মুর্শেদও রাজী হয়ে যেতে পারেন। এ তরীকতের ময়দানে যে ব্যক্তি অহঙ্কারী হবে ওই ব্যক্তি তরীকতের মধ্যে এক কদমও চলতে পারবে না। এমন ব্যক্তি মূলকেন্দ্র থেকে ছিটকে পড়বে। রেলগাড়ির ইঞ্জিন এবং বগি একই সাথে চলে কিন্তু ইঞ্জিন বগির অবস্থা আসমান-জমিন ব্যবধান। কারোর কথায় অসন্তোষ হইও না। সকলে মিলে-মিশে দ্বীনের খিদমত কর। হুযূর কেবলা আপনাদেরকে যে দায়িত্ব ন্যস্ত করেছেন, ওই দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করে নিজের লক্ষ্য-উদ্দেশ্যের দিকে অগ্রসর হতে থাকুন। যে ব্যক্তি হিংসা ও অহঙ্কার দ্বারা অপরাপর ভাইদের অন্তরে আঘাত দেয়, তাকে তার অবস্থাতে ছেড়ে দাও (গোল্লায় যাক)।
খতমে গাউসিয়া শরীফে অংশ গ্রহণ কর। এ খতমের উদ্দেশ্য এই যে, হৃদ্যতা বাড়বে, ঐক্য সৃষ্টি হবে এবং উভয় জগতের কামিয়াবী অর্জিত হবে।
عشق است هر جه است دگر قصه دراز
প্রেম আছে তো সবই আছে, বাকী সব লম্বা কাহিনী। সকল ভাইয়ের উপর আল্লাহ্ ও রসূল সাল্লাল্লাহু তা’আলা আলায়হি ওয়াসাল্লাম জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়ার এক বড় দায়িত্ব অর্পণ করেছেন। আল্লাহ্ তা’আলা যেন এ মহান নেয়ামত ও আমানতের তরক্কি ও বিস্তৃতি ঘটান এবং এই জ্ঞানের ঝর্ণা থেকে হাজার হাজার উলামায়ে কেরাম যেন প্রতি বছর আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের মতাদর্শে শিক্ষা অর্জন করে সঠিক অর্থে মুসলিম-বিশ্বের খিদমত করতে পারেন। আমীন, সুম্মা আমীন।

গ্রন্থনায়: মুহাম্মদ সাইফুল আলম।

শেয়ার
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •