মৃত ব্যক্তির কবরে কলেমা বা দো’আ যা বরকতের আহাদনামা দেয়া যাবে কিনা?

0

মুহাম্মদ রাশেদুল ইসলাম-জোয়ারা, চন্দনাইশ, চট্টগ্রাম।

প্রশ্ন: আমাদের এলাকায় বহুকাল হতে মৃত ব্যক্তির কবরে কলেমা বা দো’আ যা বরকতের জন্য দেয়া হয় সেটাকে আহাদ নামা বলে আমরা জানি। কিছু দিন আগে একজন মাওলানা বলল এটা বিদআত, তার কোন ভিত্তি নেই। প্রকৃত অর্থে আহাদ নামার কোন ফজিলত আছে কিনা? মৃত ব্যক্তির ‘কপালে বা কাফনে বিস্মিল্লাহ্ অথবা দো’আ-দরূদ লেখার ফজিলতসহ বিস্তারিত জানালে ধন্য হব।

উত্তর: মৃত ব্যক্তির কাফনে কিংবা পৃথক কাপড়ে কলমায়ে তৈয়্যবা অথবা পৃথক একটি কাপড়ে লিখে আহাদনামা (দো’আটি) কবরের ভিতর দেয়া হয়। যাতে তার বরকতে কবরবাসী আজাব হতে রক্ষা পায়। এবং মুনকার নাকিরের সাওয়ালের জবাব তার জন্য সহজ হয় এটা বৈধ ও বরকতমন্ডিত। এটাকে বিদআত বা ভিত্তিহীন বলা গোমরাহী ও অজ্ঞতা বরং এটি আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের আক্বিদা এবং নির্ভরযোগ্য দলিল সমর্থিত। যেমন ইমাম তিরমিযী রাহমাতুল্লাহি আলায়হি ‘নাওয়াদেরুল উসূলে’ বর্ণনা করেন-
مَنْ كَتَبَ هَذِهِ الدُّعَاءِ وَجَعَلَهُ بَيْنَ صَدْرِ المَيْت وكَفْنِهِ فى رُقْعةٍ لم يَنَلَهُ عَذابُ القبر ولايرى منكرا ونكيرا وهو هذا-
অর্থাৎ- যে ব্যক্তি এ দো’আটি কোন কাগজের টুকরায় লিখে কবরে মৃতের বক্ষের উপর কাফনের নিচে রাখবে তাকে কবরের আযাব পাবে না এবং সে মুনকার-নাকিরকে দেখবে না। দো’আটি নি¤œরূপ-
لَا اِلَهَ الَّا الله أكبر لااله الّا الله وحدهُ لا شريك لَهُ لاالَهَ اِلَّا الله لهُ الملك ولَهُ الحمد لااله اِلَّا الله ولاحولَ ولَا قوَّةَ اِلَّا بِاللهِ العَلِىّ العظيم-
ইমাম তিরমিজি সৈয়্যদুনা হযরত আবু বকর সিদ্দিক রাদ্বিয়াল্লাহু তা‘আলা আনহু-এর সূত্রে বর্ণনা করেন- হুযূর পুরনূর সাল্লাল্লাহু তা’আলা আলায়হি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন, ‘‘যে ব্যক্তি নামাযের পর এ দো’আটি পাঠ করে তখন ফেরেশতারা উহা লিখে মহর অংকিত করে কিয়ামতের জন্য সংরক্ষণ করে রাখেন। আল্লাহ্ তা‘আলা যখন উক্ত বান্দাকে কবর থেকে তুলবেন ফেরেশতা উক্ত লিপি সঙ্গে আনবেন। ঘোষণা হবে লোকটি কোথায়? তাকে এ আহাদ নামা দেয়া হবে। আহাদনামাটি এরূপ-
اللهمَّ فاطر السموات والارض عالم الغيب والشهادة هو الرحمن الرحيم أنَّى عَهدْتُ اليك فى هذِه الحياة الدنيا بانك اَنت وَحْدُك لاشريك لك وأنَّ محمَّدًا عبدك ورسولك فلاتَكِلْنِىْ نَفْسى فَانّك أن تكلنى الى نفسى تُقَرَّبُنى مِن السّوء وتُبَاعِدُنِى مِن الخير وانّى لاأثِقُ اِلّا برحمتك فاجعل رحتك لى عهدًا عندك تُوَدِّيه الى يوم القيامة انك لاتخلف الميعاد-
হযরত ইমাম নকীহ বিন আজীল উপরোক্ত দো’আ/আহাদনামা সম্পর্কে বলেন-
اذا كَتَبَ هذهِ الدّعاء وجعل مع الميت فِى قبره وقَّاهُ الله فِتْنَةَ القبر وعذابه-
অর্থাৎ- এ দো’আটি লিখে মৃতের সাথে কবরে রাখলে আল্লাহ্ তা’আলা তাকে কবরের ফিতনা ও আযাব থেকে রক্ষা করবেন। ফিকহের বিখ্যাত কিতাব ‘দুররে মুখতারে’ উল্লেখ রয়েছে-
كُتب على جبههُ الميت أو عمامتهِ أو كفنه عهد نامة يرجى ان يغفر الله للميت أَوصَى بَعضُهُمْ ففُعِلَ أنْ يكتب فِى جبهته وصدره- بسم الله الرحمن الرحيم- ففُعِلَ ثُمَّ رُيِىَ فِى المنام فسئِلَ فقال : لما وُضعت فى القبر جاءتنى ملائكة العذاب فلما رأوا مكتوبًا على جبهتى بسم الله الرحمن الرحيم قالوا اَمَنْتَ من عذاب الله-
অর্থাৎ- মৃতের কপালে বা পাগড়িতে বা কাফনের উপর আহাদনামা লিখলে আশা করা যায় যে, আল্লাহ্ মৃতকে ক্ষমা করবেন। কেউ অছিয়ত করলে তার কপালে এবং বক্ষের উপর যেন ‘বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম’ লিখে দেয়া হয়। অছিয়ত অনুযায়ী করা হলো। স্বপ্নে তাকে দেখা হলে তার অবস্থা জিজ্ঞাসা করা হলো। সে বলল, আমাকে যখন কবরে রাখা হলো তখন আমার কাছে আজাবের ফেরেশতারা আসল। তারা যখন আমার কপালে ‘বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম’ লেখা দেখল তারা বলল তুমি আল্লাহর আজাব থেকে নিরাপদ হয়েছ।
[আদ-দুররুল মুখতার, ৬ষ্ঠ খন্ড, পৃষ্ঠা ৪১৫, কৃত: ইমাম আল্লামা আলাউদ্দীন খাসকপি হানাফী রাহ., ও মা’মুলাতে আহলে সুন্নাত কৃত: আল্লামা মুহাম্মদ আবদুল হামিদ কাদেরী বদায়ুনী রাহ.]

শেয়ার
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •