প্রশ্ন: কবরের পাশে ক্বোরআন তেলাওয়াত ও জিয়ারতের হুকুম কি? জনৈক মওলভী বলেন- এটা না-জায়েয। এ ব্যাপারে ফায়সালা জানতে চাই।

0

মুহাম্মদ আহসান উল্লাহ্ –সীতাকুন্ড, চট্টগ্রাম।

প্রশ্ন: কবরের পাশে ক্বোরআন তেলাওয়াত ও জিয়ারতের হুকুম কি? জনৈক মওলভী বলেন- এটা না-জায়েয। এ ব্যাপারে ফায়সালা জানতে চাই।

উত্তর: মুসলিম জীবনে কবর জিয়ারত গুরুত্বপূর্ণ ও বরকতময় আমল। প্রিয়নবী রাসূলে পাক সাল্লাল্লাহু তা‘আলা আলায়হি ওয়াসাল্লাম অসংখ্য বার জান্নাতুল বাকী শরীফ এবং বিভিন্ন কবর জিয়ারত করেছেন এবং উম্মতকে জিয়ারত করার হুকুম দিয়েছেন। সুতরাং জিয়ারত সম্পূর্ণ ক্বোরআন-হাদীস এবং শরীয়ত সম্মত একটি নেক আমল। قال النؤوى وأجمعوا عَلَى أنَّ زيارتها سنة لهم- অর্থাৎ- ইমাম নববী রাহমাতুল্লাহি আলায়হি বলেছেন- উম্মতের ইজমা হয়েছে যে, কবর জিয়ারত করা সুন্নাত।
[মিরকাত শরহ মিশকাত: ৪র্থ খন্ড, পৃষ্ঠা ১২৫৫] হাদীসে পাকে উল্লেখ রয়েছে-
عن ابن مسعود ان رسول الله صلى الله عليه وسلم قال كُنتُ نهبيتكُمْ عن زيارة القبور فزوروها فانها تزهدُ فى الدنيا وتذكر الاخرة- (رواه ابن ماجه)
অর্থাৎ- প্রখ্যাত সাহাবী হযরত আবদুল্লাহ্ ইবনে মাসউদ রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, নিশ্চয় আল্লাহ্র রাসূল সাল্লাল্লাহু তা‘আলা আলায়হি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ইতিপূর্বে আমি তোমাদেরকে কবর জিয়ারত (বিভিন্ন কারণে) নিষেধ করেছিলাম, এখন থেকে তোমরা কবর জিয়ারত কর। কেননা এটা দুনিয়ার প্রতি বিমুখ করে ও আখেরাতের কথা স্মরণ করে দেয়।
[সুনানে ইবনে মাজাহ: হাদীস নম্বর ১৫৭১, সুনানে দারে কতুনী: হাদীস নম্বর- ৪৬৭৯, মুস্তাদরাকে হাকেম: হাদীস নম্বর – ৭১৯৭, মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বাহ্: হাদীস নম্বর- ১১, ৮০৯] উপরোক্ত হাদীস পাকে প্রিয়নবী সাল্লাল্লাহু তা‘আলা আলায়হি ওয়াসাল্লাম এর নূরানী ইরশাদ فَزُورُوْاها অর্থাৎ- তোমরা কবর জিয়ারত কর। প্রিয়নবী রাসূলে পাক সাল্লাল্লাহু তা‘আলা আলায়হি ওয়াসাল্লাম-এর এরূপ বলা দ্বারা স্পষ্টভাবে কবর জিয়ারত করা সুন্নাত প্রমাণিত হয়ে যায়। কবর জিয়ারত করতে গিয়ে ক্বোরআন তেলাওয়াত, দোআ-দরূদ পাঠ করা এবং কবরবাসীর জন্য দোআ করাও হাদীসে পাক হতে প্রমাণিত। যেমন-
عن ابى هريرة رضى الله عنه انّ رسول الله صلى الله عليه وسلم خرج الى المقابر فقال السلام عليكم دار قوم مؤمنين وانّا أن شاء الله بكم لاحقون- (مسند احمد)
অর্থাৎ- প্রখ্যাত সাহাবী ও সর্বাধিক হাদীস বর্ণনাকারী হযরত আবূ হুরায়রা রাদ্বিয়াল্লাহু তা‘আলা আনহু হতে বর্ণিত ‘নিশ্চয় (একদা) আল্লাহর নবী রাসূলে পাক সাল্লাল্লাহু তা‘আলা আলায়হি ওয়াসাল্লাম কবরস্থানের উদ্দেশ্যে বের হলেন এবং কবরবাসীদের উদ্দেশ্যে বলেন, হে মু’মীন সম্প্রদায়! আপনাদের উপর শান্তি বর্ষিত হোক। অতি শীঘ্রই আমরাও আপনাদের সাথে মিলিত হব।
[মুসনাদে আহমদ: হাদীস নম্বর ৮৮৭৮] তাছাড়া ফিক্হের প্রসিদ্ধ গ্রন্থ র্দুরুল মুখতার ও রদ্দুল মুহতার কিতাবদ্বয়ে কবর জিয়ারতকে মুস্তাহাব উল্লেখ করেছেন। প্রতি সপ্তাহে একদিন মুরব্বী ও আত্মীয় স্বজনের কবর জিয়ারত করা অতি উত্তম ও ফজিলতময়। তবে জুমাবার, বৃহস্পতিবার, রবিবার অথবা সোমবার জিয়ারত কবুলের জন্য বেশী উপযোগী, উত্তম হল শুক্রবার সকাল বেলা জিয়ারতের উদ্দেশ্যে কবরস্থানে গিয়ে সূরা ফাতেহা শরীফ, যদি সম্ভব হয়, সূরা বাকারার ১ম অংশ ‘আলিফ লা-ম’ থেকে ‘মুফলিহুন’ পর্যন্ত, আয়াতুল কুরসি, ‘আ-মার্নারসূলু’ শেষ পর্যন্ত, সূরা ইয়াছিন, সূরা মূলক বা তাবারাকাল্লাজী, সূরা তাকাসূর, সূরা ইখলাস- ৩/৭/১১ বার এবং দরূদ শরীফ পাঠ করা অতি উত্তম। এসব তেলাওয়াত করে কবরবাসীদের জন্য সওয়াব বখশিশ করা নেহায়ত উত্তম তরিকা। হাদীস শরীফে বর্ণিত আছে, ‘‘কবর জিয়ারতকালে যে এগার বার সূরা ইখলাস তেলাওয়াত করে সওয়াব মৃত ব্যক্তিদের রূহে বা কবরে পৌঁছাবে উক্ত কবরস্থানে যত কবরবাসী আছে তাদের সমান সওয়াব জিয়ারতকারী পাবে। কবর জিয়ারতকালে উল্লেখিত সূরাগুলো তেলাওয়াত করা জায়েয ও উত্তম হলে গোটা ক্বোরআন শরীফ তেলাওয়াত করা কেন নাজায়েয হবে? বরং সম্পূর্ণ ক্বোরআন তেলাওয়াতের সওয়াব তো আরো বেশী। সুতরাং কবর জিয়ারত এবং জিয়ারতকালে ক্বোরআন শরীফ হতে তেলাওয়াত এবং বিভিন্ন দোআ-দরূদ তেলাওয়াত করা অতি বরকতময় ইবাদত। এটাকে নাজায়েয বা বিদআত ইত্যাদি বলা মূর্খতা, হঠকারিতা এবং দ্বীন-শরীয়ত নিয়ে ঠাট্টা-বিদ্রুপ করার নামান্তর। বরং প্রিয়নবী সাল্লাল্লাহু তা‘আলা আলায়হি ওয়াসাল্লাম, সাহাবায়ে কেরামকে সাথে করে জান্নাতুল বাকি ও শোহাদায়ে উহুদের জিয়ারত করেছেন এবং দোআ করেছেন মর্মে হাদীসে বর্ণিত আছে।
[মুসান্নাফে আবি শায়বাহ্, মেরকাত শরহে মিশকাত, শরহে সূদূর ইত্যাদি]

শেয়ার
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •