নামাযে দু’পায়ের মাঝখানে কতটুকু ফাঁকা রেখে দাঁড়াতে হবে

0

মুহাম্মদ ফারহান উদ্দীন -হাটহাজারী, মাদার্শা, চট্টগ্রাম।
প্রশ্ন: ছোট বেলা হতে হুজুরদের কাছে জেনেছি নামাযে দাঁড়ালে দুই পায়ের মাঝখানে ৪ আঙ্গুল ফাঁকা রাখতে হয়। কিন্তু এখন দেখা যায় যে দু’পায়ের মাঝখানে বিরাট ফাঁকা রেখে নামাযে দাঁড়াতে দেখতে পাওয়া যায়। এ ব্যাপারে সঠিক তথ্য জানিয়ে ধন্য করবেন।
উত্তর: নামাযে দাঁড়ানো অবস্থায় দু’পায়ের মাঝখানে কতটুকু পরিমাণ ফাঁকা রাখতে হবে প্রায় এ বিষয়ে বিভিন্ন স্থানে বিভ্রান্তি দেখা যায়। কেউ তো কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাতার সোজা করে দাঁড়ালে দেখা যায় উভয়ের পায়ের মাঝে ফাঁকের পরিমাণ অনেক বেশি, যা একেবারে বেমানান এবং সুন্নাতের পরিপন্থী। ওজর বা অসুবিধা হলে ভিন্ন বিষয়। তখন সুযোগমত নামাযে দাঁড়াবে। তবে কোন প্রকারের ওজর বা অসুবিধা না হলে নামাযে দাঁড়ানো অবস্থায় দু’পায়ের মাঝখানে চার আঙ্গুল পরিমাণ ফাঁক রাখা মুস্তাহাব এবং দু-পাকে সোজা রেখে পায়ের আঙ্গুলগুলোকে কিবলামুখী রাখা সুন্নাত। বিখ্যাত ফতোয়া গ্রন্থ ‘রাদ্দুল মুহতার’’-এ উল্লেখ রয়েছে-
          وسبغنى أنْ بكونَ بينهما مقدارُ أربعِ اصابع اليد لِانّهُ اَقْرَبُ اِلَى الخشوع هكذا روى عن اِبِى نَصْرِ الدبوسئ أنّه كانَ يَفْعَلَهُ- ( ص- ৩৭৪- ج- ৩)
 অর্থাৎ নামাযে দাঁড়ানো অবস্থায় দুই পায়ের মাঝখানে হাতের চার আঙ্গুল পরিমাণ ফাঁক রাখা উচিত। কেননা নামাযের মধ্যে খুশু বা একাগ্রতার জন্য এটি অতি নিকটবর্তী। হযরত আবু নসর দাবুসী রাহিমাতুল্লাহি আলায়হি থেকেও এমন বর্ণনা পাওয়া যায়- তিনি নিজেও এ রকম আমল করতেন।
 [রাদ্দুল মুহতার: ৩য় খণ্ড, পৃষ্ঠা ৩৮৪, কৃত আল্লামা আলাউদ্দীন খাচকফি হানাফী রাহ.]
উপরোক্ত বর্ণনা হতে বুঝা যায়, নামাযে দাড়াঁনো অবস্থায় দু’পায়ের মাঝখানে চার আঙ্গুল পরিমাণ ফাঁক রাখা উত্তম ও সুন্দর পন্থা।
শেয়ার
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •