গাউসুল আযম জিলানী (রহ.)’র প্রবর্তিত কাদেরিয়া ত্বরীকতটি তাৎপর্যমন্ডিত

0

আলমগীর খানকা শরীফে পবিত্র ফাতেহা-ই-ইয়াজদহম মাহফিলে বক্তারা বলেন- ‘‘পীরানে পীর দস্তগীর হযরত গাউসুল আযম জিলানী(রাঃ)’র প্রবর্তিত কাদেরিয়া ত্বরীকতটি তাৎপর্যমন্ডিত’’

====

আনজুমান-এ রহমানিয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া ট্রাষ্ট, চট্টগ্রাম’র ব্যবস্থাপনায় ট্রাষ্ট’র সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট আলহাজ মোহাম্মদ মহসিনের সভাপতিত্বে ২৯ ডিসেম্বর বাদ মাগরিব নগরীর ষোলশহরস্থ আলমগীর খানকা-এ-কাদেরিয়া সৈয়্যদিয়া তৈয়্যবিয়ায় পীরানে পীর দস্তগীর গাউসে আযম, মাহবুবে সুবহানী, কুতুবে রব্বানী, শায়খ হযরত সৈয়্যদ আবু মুহাম্মদ মুহিউদ্দীন আবদুল কাদের জিলানী আল্-হাসানী ওয়াল হুসাইনী রাদিয়াল্লাহু আনহু’র ‘ফাতেহা-ই-ইয়াজদহুম’, ও আওলাদে রসূল আল্লামা সৈয়্যদ মুহাম্মদ তৈয়্যব শাহ্ (রহঃ)’র মা ছাহেবান’র ফাতেহা এবং পবিত্র গেয়ারভী শরীফ মাহফিল যথাযোগ্য মর্যাদা সহকারে অনুষ্ঠিত হয়।

এতে বক্তারা বলেন- সিহাহ্ সিত্তার অন্যতম প্রসিদ্ধ কিতাব আবু দাউদ শরীফে আছে, হুযুর-ই-আকরাম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্ল্যম এরশাদ করেছেন, “প্রত্যেক শতাব্দির শেষপ্রান্তে এ উম্মতের জন্য আল্লাহ্ তা’আলা একজন মুজাদ্দিদ অবশ্যই প্রেরণ করেন, যিনি উম্মতের জন্য তাদের দ্বীনকে সজীব করে দেন।’’

হিজরী পঞ্চাদশ শতাব্দির শেষ প্রান্তে এমনি এক যুগসন্ধিক্ষণে ইসলামকে পুনজীবনদাতা তথা মহান সংস্কারক রূপে শাহানশাহ্ বাগদাদ পীরানে পীর দস্তগীর হযরত শেখ সুলতান মীর মহিউদ্দিন সৈয়্যদ আবদুল কাদের জিলানী রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু আবির্ভূত হন।

তিনি তাঁর নির্ভূল ও অপ্রতিদ্বন্ধী জ্ঞান, গাউসিয়াত-ই কুবরা’র মতো বেলায়তী ক্ষমতা, অগণিত কারামা, ইসলাম ও মুসলমানদের প্রতি একান্ত ভালোবাসা ও আন্তরিকতা, অত্যন্ত হৃদয়স্পর্শী বাগ্মিতা, তাঁরই প্রতিষ্ঠিত তরীক্বাগুলো, বিশেষত ক্বাদেরিয়া তরীক্বার অব্যর্থ কার্যকর শিক্ষা ও দীক্ষা, ক্ষুরধার লেখনী, যুগশ্রেষ্ঠ মাদ্রাসা পরিচালনা করে সাচ্চা ওলামা তৈরী করার পরম্পরা চালু করা, স্বীয় যোগ্য আওলাদ ও প্রচুর সংখ্যক খলীফা ও উত্তরসূরী ওলামা মাশা-ইখ নিয়োগ করে যাওয়া ইত্যাদির মাধ্যমে একটানা নব্বই বছর অক্লান্ত পরিশ্রম ও গাউসিয়াত-সমৃদ্ধ ও সুদূর প্রসারী পদক্ষেপসমূহ দ্বারা বিশ্বে আবার ইসলাম তথা সার্বিক শান্তি ও সমৃদ্ধি প্রতিষ্ঠা করেন।

বক্তারা আরো বলেন- শাহানশাহে বাগদাদ গাউসে আ’যম জীলানী রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু’র এ অসাধারণ সংস্কার সুদূর প্রসারী হয়েছে বিশেষতঃ তাঁর প্রতিষ্ঠিত তরীক্বাহ-ই ক্বাদেরিয়া’র মাধ্যমে। এ তরীকার অসংখ্য-অগণিত খলীফা (মাশা-ইখে তরীক্বত) তাঁরই বেলায়তী কৃপাদৃষ্টি ও ক্ষমতায় সমৃদ্ধ হয়ে সারা বিশ্বে আল্লাহর সৃষ্টিকে সঠিক পথের দিশাদান ও পরিচালনা করে আল্লাহ ও রাসূল প্রদত্ত দ্বীন ইসলামকে তার প্রকৃত অবয়বে প্রতিষ্ঠিত রেখে যাচ্ছেন।

তাঁদের মধ্যে শাহানশাহে চৌহর ও শাহানশাহে সিরিকোট এবং তাঁর সুযোগ্য উতরসূরীগণের অবদান ও অব্যাহত প্রচেষ্টা আজ মধ্যাহ্ন সূর্য্যরে ন্যয় স্পষ্ট। পীরানে পীর দস্তগীর রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু’র প্রবর্তিত কাদেরিয়া ত্বরীকতটি তাৎপর্যমন্ডিত। কারণ, কাদেরিয়া তরীককা আল্লাহ তা’আলার নূর ও তাজাল্লিয়তের এমন এক প্রস্রবণ, যা থেকে অপরাপর তরীকাগুলো সিক্ত হয়েছে।

এ জন্যে আজ সমগ্র বিশ্বে গাউসে পাককে শ্রদ্ধাসহ স্মরণ করা হয়। এ মহান তরীকার বর্তমান মুর্শিদ হযরতুল আল্লামা সৈয়্যদ মুহাম্মদ তাহের শাহ্ দামাত বরকাতুহুল আলিয়ার বেলায়ত-সমৃদ্ধ ভূমিকা বর্তমান যুগের জন্য এক সমুজ্জল আলোকবর্তিকা। কারণ এ বহুমুখী ফিৎনার যুগে ত¦রীক্বা-ই-ক্বাদেরিয়া সিরিকোটিয়া সর্বাধিক ও সবচেয়ে বেশী কার্যকর হিসাবে প্রমাণিত।

এ মহান তরীকাহ্ শরীয়ত ও তরীক্বত উভয়ের সমন্বয়ে সমৃদ্ধ, যা মানুষের বাহির ও বাতিনের পরিশ্রদ্বির জন্য একান্ত অপরিহার্য। ১১ রবিউস সানী হযরত গাউসে পাক রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু’র পবিত্র ‘ফাতেহা-ই-ইয়াজদাহুম’, আওলাদে রসূল আল্লামা সৈয়্যদ মুহাম্মদ তৈয়্যব শাহ্(রহঃ)’র মা ছাহেবান’র ফাতেহা শরীফ। হযরত গাউসে পাক রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু’র শিক্ষা অনুসরণে আদর্শ শিক্ষায় আমরা যেন সিলসিলার নির্দেশিত পথে নিজেদের জীবন আলোকিত করতে পারি আমরা যেন উভয় জগতের কল্যাণ লাভ করতে পারি এবং তাঁর ফয়ুজাত লাভে ধন্য হতে পারি পবিত্র ফাতেহা-ই-ইয়াজদহম মাহফিলে আমাদের এটাই কামনা।

আল্লাহ এ বরকতমন্ডিত পরস্পরাকে ক্বিয়ামত পর্যন্ত জারী রাখুন। আ-মী-ন। উক্ত মাহফিলে প্রধান বক্তা ছিলেন-জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আলহাজ মাওলানা মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ অছিয়র রহমান আলকাদেরী প্রমুখ।

এতে আনজুমান ট্রাষ্ট’র সেক্রেটারী জেনারেল আলহাজ মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন, এডিশনাল জেনারেল সেক্রেটারী আলহাজ মোহাম্মদ সামশুদ্দিন, জয়েন্ট জেনারেল সেক্রেটারী আলহাজ মোহাম্মস সিরাজুল হক, এ্যাসিস্টেন্ট জেনারেল সেক্রেটারী আলহাজ এস.এম. গিয়াস উদ্দিন শাকের, ফাইন্যান্স সেক্রেটারী আলহাজ মোহাম্মদ সিরাজুল হক, প্রেস এন্ড পাবলিকেশন সেক্রেটারী প্রফেসর আলহাজ কাজী শামসুর রহমান, কেন্দ্রীয় গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশ’র চেয়ারম্যান আলহাজ পেয়ার মোহাম্মদ, জামেয়ার চেয়ারম্যান প্রফেসর আলহাজ মোহাম্মদ দিদারুল ইসলাম, আনজুমান ট্রাষ্ট’র সদস্য আলহাজ মুহাম্মদ কামালউদ্দিন চৌধুরী, আলহাজ মুহাম্মদ সাহাজাদ ইবনে দিদার, আলহাজ মুহাম্মদ আনোয়ারুল হক, আলহাজ নূর মোহাম্মদ কন্ট্রাক্টর, আলহাজ মুহাম্মদ কমরুদ্দিন সবুরসহ গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশ চট্টগ্রাম মহানগরের সভাপতি আলহাজ আবুল মনছুর, সেক্রেটারী আলহাজ মোহাম্মদ মাহবুবুল আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক আলহাজ মুহাম্মদ সাদেক হোসেন পাপ্পু, অর্থ সম্পাদক আলহাজ মুহাম্মদ মনোয়ার হোসেন মুন্না, আলহাজ ছাবের আহমদ, হাফেজ মুহাম্মদ আজহারুল ইসলাম আজাদসহ অন্যান্য কর্মকর্তা-সদস্যবৃন্দ, চট্টগ্রাম উত্তর জেলার সেক্রেটারী এডভোকেট আলহাজ মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার সেক্রেটারী মোহাম্মদ হাবিবুল্লাহসহ অন্যান্য কর্মকর্তা-সদস্যবৃন্দ, জামেয়ার ওলামায়ে কেরাম, পীরভাই-বোন, সুন্নী জনতা, শুভাকাক্সক্ষী, ভক্ত-অনুরক্ত প্রমুখরা উপন্থিত ছিলেন।

পূর্বাহ্নে খত্মে কোরআন পাক, খতমে মজমুয়ায়ে সালাওয়াতে রাসুল, খতমে গাউসিয়া শরীফ, মিলাদ অনুষ্ঠিত হয়। পরিশেষে, জামেয়ার শায়খুল হাদীস মুফতি আলহাজ মুহাম্মদ ওবাইদুল হক নঈমী দেশ, জাতি ও সমগ্র মুসলিম উম্মার শান্তি কামনা করে দো’আ ও মুনাজাত করেন। অনুষ্ঠান শেষে তবাররুক বিতরণ করা হয়।

শেয়ার
  • 203
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    203
    Shares