নবীজির দেশে ওহাবী নজদীদের ধৃষ্টতা – অধ্যক্ষ মাওলানা মুহাম্মদ বদিউল আলম রিজভি

0

নবীজির দেশে ওহাবী নজদীদের ধৃষ্টতা 

অধ্যক্ষ মাওলানা মুহাম্মদ বদিউল আলম রিজভি

=====
وَعَنْ اِبْنِ عمر رضى الله عنه ذكر النبى صلى الله عليه وسلم قال اللهم بارك لنا فى شامنا اللهم بارك لنا فى يمننا قالوا يارسول الله وفى نجدنا قال اللهم بارك لناو فى شامنا اللهم بارك لنا فى يمننا قالوا يا رسول الله وفى نجدنا فاظنه قال فى الثالثة هناك الزلازل والفتن وبها يطلع قرن الشيطان – (رواه البخارى)

অনুবাদ: হযরত আবদুল্লাহ্ ইবনে ওমর রাদ্বিয়াল্লাহু আনহুমা থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন যে, প্রিয়নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম (একদিন) এভাবে দু’আ করেছিলেন যে, হে আল্লাহ্! আপনি আমাদের শাম তথা সিরিয়া দেশে বরকত দান করুন, হে আল্লাহ্ আপনি আমাদের ইয়েমেন দেশে বরকত দান করুন (উপস্থিত কিছু) লোক আবেদন করল, ইয়া রাসূলাল্লাহ্! আমাদের নজদের জন্যও। তিনি পুনরায় দু‘আ করতে লাগলেন, হে আল্লাহ্ আমাদের জন্য আমাদের শাম দেশে বরকত দান করুন, হে আল্লাহ্ আমাদের জন্য ইয়েমেন দেশে বরকত দান করুন, (কিছু লোক) পুনরায় আরজ করল, ইয়া রাসূলাল্লাহ্! আমাদের নজদের জন্যও। আমার মনে হয় তিনি তৃতীয়বারে এরশাদ করলেন, সেখান থেকে ভূমি কম্পন, ফিতনা-ফ্যাসাদ এবং শয়তানের শিং (ওহাবীয়তের ফিতনা) বের হবে। [বুখারী শরীফ: কিতাবুল ফিতন, হাদীস নম্বর- ৬৬৮১]

প্রাসঙ্গিক আলোচনা
বর্ণিত হাদীস শরীফে নজদের জন্য দু‘আ করার অনুরোধ করা সত্ত্বেও প্রিয়নবী, অদৃশ্যের সংবাদদাতা নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নজদের জন্য দু‘আ করেননি। সেই থেকে নজদ ইতিহাসে একটি অভিশপ্ত ও কলংকিত স্থানে পরিণত হয়।

নবীজির ভবিষ্যৎ বাণী মোতাবেক সেখানে থেকে আবির্ভাব ঘটলো ভন্ডনবী মুসায়লামাতুল কাজ্জাবের। পরবর্তীতে সেই নজদে আবদুল ওহাব নজদীর আবির্ভাবের মধ্য দিয়ে তার প্রচারিত ও প্রবর্তিত ওহাবী মতবাদ রাষ্ট্রীয়ভাবে ইবনে সউদের সহযোগিতায় প্রতিষ্ঠা লাভ করে। মুসলমান নামধারী নবীদ্রোহী এই অভিশপ্ত সম্প্রদায়টি তখন থেকেই অদ্যাবধি রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় ইসলামের মূলধারা আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআতের আক্বিদা-বিশ্বাসকে নিশ্চিহ্ন করার লক্ষ্যে নবী-রাসূল, সাহাবা, ওলী, মুজতাহিদ, আইম্মা-ই কেরামের বিরুদ্ধে যে ঈমান বিধ্বংসী কার্যক্রম শুরু করেছিল এর অশুভ তৎপরতা ও প্রভাব আজ কেবলমাত্র আরব বিশ্বে আর সীমাবদ্ধ নেই। তাদের এ ভ্রান্তমতবাদ তাদেরই অর্থায়ন ও পৃষ্ঠপোষকতায় আজ পৃথিবীর দেশে দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। তৌহিদ প্রতিষ্ঠার নামে রিসালতের প্রতি ধৃষ্টতা প্রদর্শন, নবী-রাসূল, সাহাবী, ওলী, মাযহাব ও তরীকতের মহান শায়খগণের প্রতি কটূক্তি অবমাননা অসম্মান ও অশ্রদ্ধা প্রদর্শন তাদের তথাকথিত তৌহিদী চেতনার নিদর্শন। ইসলামের ঐতিহ্যধন্য অসংখ্য বরকতময় স্মৃতি বিজড়িত নিদর্শন ও স্থাপনা ধ্বংস কার্যক্রম তাদের তথাকথিত সংস্কার আন্দোলনের অন্যতম।

বিশ্ব বিখ্যাত ফতওয়া গ্রন্থ রচয়িতা আল্লামা ইবনে আবেদীন শামী রাহমাতুল্লাহি আলায়হি তাঁর প্রণীত ‘রদ্দুল মোখতার’ কিতাবের ৩য় খণ্ডে ৪২৭ ও ৪২৮ পৃষ্ঠায় ‘বাবুল বুগাত’-এর প্রারম্ভে বর্ণনা করেন-
كما فى زماننا فى اتباع عبد الوهاب الذين خرجوا من نجد وتغلبوا على الحرمين وكانوا ينتحلون الى الحنابلة لكن هم اعتقدوا انهم هم الملمون وان خالف اعتقادهم مشركون واستباحوا بذالك قتل اهل السنة وقتل علمائهم-
অর্থ: ‘‘যেমন আমাদের সময়ে সংগঠিত আবদুল ওহাবের অনুসারীদের লোমহর্ষক ঘটনা প্রণিধানযোগ্য। তারা নজদ থেকে বের হয়ে মক্কা মুর্কারামাহ্ ও মদীনা মুনাওয়ারার উপর আধিপত্য বিস্তার করেছিল। নিজেদেরকে তারা হাম্বলী মাযহাবের অনুসারী বলে দাবী করতো। তাদের দৃঢ় বিশ্বাস ছিলো তারাই একমাত্র মুসলমান, তাদের বিরোধীরা সকলেই মুশরিক।

এ জন্যে তারা আহলে সুন্নাত ওয়াল জামা‘আতের অনুসারীদের হত্যা করা জায়েয মনে করেছে। এবং এদের অনেক আলেমকে শহীদ করেছে।

মক্কা নগরীর তৎকালীন প্রখ্যাত সুন্নী আলেম আল্লামা সৈয়্যদ আহমদ ইবনে যাইনী দাহলান মক্কী রাহমাতুল্লাহি আলায়হি যিনি পবিত্র মক্কা নগরীর প্রখ্যাত মুফতি ছিলেন- তিনি তাঁর প্রণীত ‘আল্ ফিতনাতুল ওহাবীয়্যাহ্’ নামক কিতাবে ওহাবীদের বাতিল ও কুফরি আক্বিদা ও মুসলমানদের প্রতি তাদের নির্যাতন নিষ্পেষণের করুণ ইতিহাসের বিস্তারিত বিবরণ লিপিবদ্ধ করেছেন। মধ্যপ্রাচ্যের সৌদি আরব রাষ্ট্রটি বর্তমান সময়ে বিশ্বব্যাপী অভিশপ্ত ওহাবী মতবাদ প্রতিষ্ঠা ও প্রচারের কেন্দ্রীয় ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে। বর্তমানে ‘আহলে হাদীস’ সম্প্রদায়টি তাদের অনুসৃত মতাদর্শের আরেক নতুন সংস্করণ, তাদের অনুসৃত ইবনে তাইমিয়া ও আবদুল ওহাব নজদী, নাসির উদ্দীন আলবানীর উত্তর সূরীরা সৌদি আরব সহ মধ্যপ্রাচ্যের অর্থায়নে আজকে এদেশের গ্রামে-গঞ্জে শহরের অলিতে গলিতে বিভিন্ন মাদ্রাসা কিন্ডারগার্টেন এতিমখানা, হিফজখানা, মসজিদ, পাঠাগার ইত্যাদি প্রতিষ্ঠা করে স্কুল কলেজ মাদ্রাসা ইউনিভার্সিটির ছাত্রছাত্রীদের ও সরল প্রাণ সাধারণ মুসলমানদেরকে ক্বোরআন-সুন্নাহর মনগড়া অপব্যাখ্যা দিয়ে মুসলমানদের ঈমান আক্বিদা সুপরিকল্পিতভাবে ধ্বংস করে দিচ্ছে।

* ইসলামী হুকুমতের নামে সৌদি প্রশাসন বর্তমানে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদীদের মদদপুষ্ট হয়ে ইয়াহুদী-নাসারাদের ক্রীড়নকরূপে ধর্মীয় সংস্কারের নামে ও তৌহিদ প্রতিষ্ঠার নামে রাসূলে করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর প্রতি সম্মান প্রদর্শন সাহাবায়ে কেরাম, আহলে বায়তে রাসূল, মুজতাহিদ ইমামগণের প্রতি সম্মান প্রদর্শনকে কুফর-শির্ক বিদআত বলে ফাতওয়া জারি করে ইসলামের মর্মমূলে আঘাত হানছে।

* সৌদি প্রশাসন নবীজির রওজা শরীফের আশেপাশে এমন কিছু মূর্খ দালাল নিয়োগ করে রেখেছে যারা বিশ্বের যিয়ারতকারী রওজা শরীফমুখী মুসলমানদেরকে কুদৃষ্টিতে দেখে ও বরকতময় আমলকে সার্বক্ষণিক শির্ক বিদআতের অপবাদ প্রদানে নিয়োজিত আছে।

* রওজা শরীফ ও জান্নাতুল বাকী শরীফে যিয়ারতের সময়সূচি সুনির্দিষ্ট করে দিয়ে লাখো ঈমানদার আশেকে রাসূলদেরকে এ মহান ইবাদত থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে।

* অসংখ্য সাহাবায়ে কেরাম, উম্মুহাতুল মুমেনীন, আহলে বায়তের কবর শরীফের স্মৃতি চিহ্ন নিশ্চিহ্ন করে দেয়া হয়েছে। কোনটি কার মাযার বর্তমানে চেনার কোন উপায় নেই। নবীজির পরিবারবর্গ সাহাবায়ে কেরামের প্রতি নজদীদের এহেন ধৃষ্টতাপূর্ণ আচরণ নবীদ্রোহীতার পরিচায়ক।

* প্রকৃত সুন্নী মতাদর্শী নজদী-বিরোধী আলেমদের ইমামতি হারামাইন শরীফাইনে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।
* আহলে হাদীসপন্থী নজদী আলেম শায়খ নাসির উদ্দীন আলবানী তার লিখিত ‘তাহযীরুল মাজেদ’ গ্রন্থে রাসূলুল্লাহর পবিত্র রওজা শরীফকে মসজিদে নববী থেকে সরিয়ে ফেলার জন্য বারবার দাবী তুলেছে। মৃতুদন্ড যোগ্য এ অমার্জনীয় অপরাধ করার পরও সৌদি সরকার তার ঈমান বিধ্বংসী কিতাবগুলো পুন:প্রকাশ করে যাচ্ছে।

* বিশ্ববিখ্যাত মুহাদ্দিস ইমাম মুহি উদ্দীন প্রণীত ‘কিতাবুল আযকার’ গ্রন্থে (فصل فى زيارة قبر الرسول الله صلى الله عليه وسلم) রাসূলে পাকের রওজা শরীফ যিয়ারত সম্পর্কিত পরিচ্ছেদটি রাসূলুল্লাহর মসজিদ যিয়ারত সম্পর্কিত পরিচ্ছেদে পরিবর্তন করে দেয়া হয়েছে। যা আবদুল কাদির শামীর সম্পাদনায় রিয়াদ দারুল হুদা প্রকাশনা কর্তৃক প্রকাশিত হয়েছে।
* সৌদি আরবের নাগরিক বিখ্যাত সুন্নী ব্যক্তিত্ব আল্লামা সৈয়্যদ আলভী মালেকী, আল্লামা সাবুনী প্রমুখ আলেমকে নজদী ওহাবী আক্বিদার বিরোধিতার কারণে বিদআতী ও মুশরিক সাব্যস্ত করে তাঁদের বিরুদ্ধে অসংখ্য কিতাব লিখা হয়েছে।

* প্রিয়নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ধরাধামে শুভাগমনের স্মৃতি বিজড়িত পবিত্র মক্কানগরীতে অবস্থিত প্রিয়নবীর স্মৃতিধন্য পবিত্র ‘মাওলদুন্নবী’ (নবী করীমের পবিত্র জন্মস্থান) সুকৌশলে নিশ্চিহ্ন করে একটি পাঠাগারে রূপান্তরিত করা হয়েছে। নবী বিদ্বেষের এতো চক্রান্তের পরও এ বরকতময় স্থানের যিয়ারত থেকে আশেকে রাসূল ঈমানদারদেরকে সৌদিরা সরাতে পারছে না। নবীজির স্মৃতি বিজড়িত নিদর্শনের প্রতি নজদী ওহাবীরা যত চক্রান্ত করুক মহান আল্লাহ্ তাঁর প্রিয় হাবীবের সুউচ্চ মর্যাদাকে সমুন্নত রাখবেন।

* মসজিদে নববী সংস্কারের নামে মসজিদে নববীর জানালায় খচিত শোভা বর্ধিত নবীজির শানে বিরচিত শতশত বৎসর ধরে সংরক্ষিত অনেকগুলো বিখ্যাত আরবি কবিতার চরণ মুছে ফেলা হয়েছে। নজদীদের এ সব গর্হিত আচরণ ধৃষ্টতা নয় কি?

* হানাফী মাযহাবের বিখ্যাত ফিকহ গ্রন্থ আল্লামা ইবনে আবেদীন শামী কর্তৃক লিখিত ‘ফতোয়ায়ে শামী’ কিতাবের ‘অলী, গাউস, কুতুব, আবদাল, সালেহীনদের’ আলোচনা শীর্ষক অধ্যায়টি বাদ দেয়া হয়েছে। এ সব ভূমিকা আল্লাহর প্রিয়বান্দা আউলিয়ায়ে কেরামের প্রতি বিদ্বেষের পরিচায়ক নয় কি?

* বিগত ২০১৪ সানে প্রিয়নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর পবিত্র রওজা শরীফ ভেঙ্গে তাঁর শরীর মুবারক অজ্ঞাত স্থানে সরিয়ে নেয়ার প্রসঙ্গে ৬১ পৃষ্ঠার একটি তথাকথিত গবেষণাপত্র রিয়াদের ইবনে সউদ ইসলামিক ইউনিভার্সিটির কুখ্যাত অধ্যাপক ড. আলী বিন আবদুল আজিজ আল শাবান কর্তৃক লিখিতখাবে প্রস্তাব করা হয়েছে। যে প্রস্তাবের ব্যাপারে বিশ্ববাসী মুসলমানদের নিন্দা ক্ষোভ ও ঘৃণা ধ্বণিত হয়েছে। নবীজির রওজা শরীফ প্রসঙ্গে জগণ্যতম চক্রান্তকারী এর সাথে জড়িত সংশ্লিষ্ট অমার্জনীয় অপরাধকারী ব্যক্তিবর্গের বিরুদ্ধে ইসলামী বিধানমতে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ না করা নবীজির প্রতি চরম ধৃষ্টতা প্রদর্শন নয় কি?
মহান আল্লাহ্ নজদী-ওহাবী ও সালাফীদের সকল প্রকার চক্রান্ত থেকে মুসলিম মিল্লাতকে হিফাজত করুন।

আ-মী-ন।

লেখক: অধ্যক্ষ, মাদ্রাসা-এ তৈয়্যবিয়া ইসলামিয়া সুন্নিয়া ফাযিল, বন্দর, চট্টগ্রাম

শেয়ার
  • 70
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    70
    Shares