প্রশ্ন: কোনো ব্যক্তি নামায পড়া অবস্থায় অপর ব্যক্তি সামনে দিয়ে হেঁটে যেতে পারবে কিনা? কোরআন হাদীসের আলেকে জানাবেন।

0

? মুহাম্মদ শামসুল ইসলাম দায়েমী
মধ্যম সাতবাড়ীয়া, চন্দনাইশ
চট্টগ্রাম।

´ প্রশ্ন: কোনো ব্যক্তি নামায পড়া অবস্থায় অপর ব্যক্তি সামনে দিয়ে হেঁটে যেতে পারবে কিনা? কোরআন হাদীসের আলেকে জানাবেন।

্উত্তর: নামাযী ব্যক্তির সামনে দিয়ে কোন প্রকারের সুতরা বা আড়াল ছাড়া অতিক্রম করা বড় গুনাহ। মুসল্লির সামনে সুতরা আড়াল থাকলে তখন সুতরা ও আড়ালের সামনে দিয়ে অতিক্রম করতে অসুবিধা নেই। বোখারী শরীফ ও মুসলিম শরীফে বর্ণিত আছে নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলায়হি ওয়াসাল্লাম এরশাদ করেছেন- অর্থাৎ নামাযী ব্যক্তির সামনে দিয়ে অতিক্রম করা কত বড় অপরাধ তা অতিক্রমকারী ব্যক্তি যদি জানত অবশ্যই সে চল্লিশবছর পর্যন্ত দণ্ডায়মান থাকাকে নামাযী ব্যক্তির সামনে দিয়ে অতিক্রম করার চেয়ে উত্তম মনে করত। মেশকাত শরীফে আছে হযরত কা’বুল আহবার রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু থেকে বর্ণিত তিনি বলেছেন- অর্থাৎ নামাযী ব্যক্তির সামনে দিয়ে অতিক্রম করা কত বড় অপরাধ তা অতিক্রমকারী ব্যক্তি যদি জানত তথা সে যমীনের ভিতরে ধসে যাওয়াকে নামাযী ব্যক্তির সামনে দিয়ে অতিক্রম করার চেয়ে উত্তম মনে করত।
উল্লিখিত বর্ণনা দ্বারা বুঝা গেল, নামাযী ব্যক্তির সামনে তার সিজদার বরাবর জায়গা দিয়ে কারো হেঁটে যাওয়া মারাত্মক অপরাধ। তবে নামাযী ব্যক্তির সামনে কোন ব্যক্তির অতিক্রম করাটা সিজদার স্থান থেকে অনেক দূরে হলে তখন তা শরিয়তের দৃষ্টিতে অপরাধী হবে না। অর্থাৎ সিজদার স্থানে মুসল্লি দৃষ্টিপাত করলে দৃষ্টির সীমানা সামনের দিকে যতটুকু যায় তার বাইরে দিয়ে অতিক্রম করলে গুনাহগার হবে না। উল্লেখ্য যে, নামাযের জামাতের সময় ইমামের সামনে সুতরা/আড়াল থাকলে তখন জমাতে শরীক কোন মুসল্লীর সামনে কেউ অতিক্রম করলে তাতেও অসুবিধা নাই। ইমামের সুতরা/আড়াল জমাতে শরীক সকল মুসল্লিদের জন্য যথেষ্ট। [হিন্দিয়া ও রদ্দুল মোহতার ইত্যাদি] ´

শেয়ার
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •