রাহনুমা-ই শরীয়ত ও ত্বরীকত, হযরাতুল হাজ্ব আল্লামা সৈয়্যদ মুহাম্মদ সাবির শাহ্ সাহেব [দামাত বরকাতুহুমুল আলিয়া]’র দিক-নির্দেশনামূলক ভাষণ

0

রাহনুমা-ই শরীয়ত ও ত্বরীকত, হযরাতুল হাজ্ব আল্লামা সৈয়্যদ মুহাম্মদ সাবির শাহ্ সাহেব [দামাত বরকাতুহুমুল আলিয়া]’র

দিক-নির্দেশনামূলক ভাষণ

আ‘ঊযু-বিল্লাহি মিনাশ্ শায়ত্বানির রাজীম।
বিস্মিল্লাহির রাহ্মানির রাহীম।
ইন্নাল্লা-হা ওয়ামালা-ইকাতাহু ইয়ুসল্লূ-না ‘আলান্নবিয়্যি ইয়া- আইয়্যুহাল্লাযীনা আমানূ
সল্লু আলায়হি ওয়াসাল্লিমূ তাসলীমা। আস্সালাতু ওয়াস্ সালামু আলাইকা এয়া রাসূলাল্লাহ্! ওয়া আলা-আলিকা ওয়া আস্হাবিকা এয়া রাহমাতাল্লিল আলামীন।
আমার অত্যন্ত সম্মানিত ক্বেবলা বাবাজী রাহ্মাতুল্লাহি আলায়হি হযরত সৈয়্যদ আহমদ শাহ্ রাহমাতুল্লাহি আলায়হি এবং কেবলা হযরত সৈয়্যদ মুহাম্মদ তৈয়্যব শাহ্ রাহমাতুল্লাহি আলায়হির রূহানী সন্তানগণ, আমার প্রিয় ভাইয়েরা! আস্সালামু আলায়কুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ্।
আমি, আপনারা সব ভাই, যত ভাই এখানে উপবিষ্ট আছেন- আন্জুমানের কর্মকর্তাবৃন্দ, জামেয়ার পরিচালক ও ব্যবস্থাপকবৃন্দ, শিক মণ্ডলী, ছাত্রবৃন্দ, গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশ-এর বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আগত প্রতিনিধিবৃন্দ এবং আরো যারা উপবিষ্ট আছেন সবাইকে মুবারকবাদ দিচ্ছি। মুবরাকবাদ এজন্য দিচ্ছি যে, আজ আমরা যেখানে বসে আছি, আজ আমরা যে উদ্দেশ্যে অপেমান হয়ে বসে আছি, আজকের পর যে উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের জন্য আমাদের প্রচেষ্টা চালাতে হবে ও কাজ করতে হবে- তা একটি মহান উদ্দেশ্য। উদ্দেশ্য মহান। আমরা হলাম নগণ্য। (মকসদ আযীম হ্যায়। হাম খাক্সার হ্যায়) আল্লাহ্ তা’আলা মহান উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের জন্য আমাদেরকে চয়ন করে নিয়েছেন। এ উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের জন্য আমাদের চয়ন করে আল্লাহ্ তা’আলা আমাদের উপর বড় ‘ইহসান’ করেছেন। (মহা অনুগ্রহ করেছেন।) আল্লাহ্ তা’আলা অন্য কারো মাধ্যমেও এ কাজ নিতে পারতেন। কিন্তু আল্লাহ্ তা’আলা আমাদেরকে নির্বাচিত করেছেন।
(হুযূর পীর সাহেব কেবলা তাঁর বক্তব্যের তরজমা করে দেয়ার আপো না করে সরাসরি তাঁর বক্তব্যের প্রতি মনোযোগ দেয়ার উপর জোর দিয়ে বলেন, সরাসরি বক্তার বক্তব্য শোনার মধ্যে একটি বিশেষ উপকার ও তৃপ্তি আছে। তিনি আরো বলেন- আপনারা উর্দু শিখুন! আমিও ইন্শা-আল্লাহ্ বাংলা শেখার চেষ্টা করবো। হযরাতে কেরামের কৃপাদৃষ্টিতে এটাও হয়ে যাবে ইন্শা-আল্লাহ্! তারপর বলেন) বাবাজীর কৃপাদৃষ্টি, হযরত চৌহরভী রাহমাতুল্লাহি আলায়হি, হযরত সৈয়্যদ আহমদ শাহ্ সিরিকোটি রাহমাতুল্লাহি আলায়হির কৃপাদৃষ্টি, হযরত সৈয়্যদ মুহাম্মদ তৈয়্যব শাহ্ রাহমাতুল্লাহি আলায়হির কৃপাদৃষ্টি, পীরে তরীক্বত হযরত সৈয়্যদ মুহাম্মদ তাহের শাহ্ দামাত বরকাতুহুমুল আলীর কৃপাদৃষ্টি আপনাদের প্রতি, আমাদের প্রতি রয়েছে।
হযরত তাহের শাহ্ সাহেব হুযূর তো, মা’শা আল্লাহ্, এ মিশনকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। তিনি হলেন এ মিশনের সিপাহসালার। আর আমরা হলাম তাঁর সিপাহী। (ইউনিফর্ম পরিহিত, নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত (অঝঋ) ভাইদের প্রতি ইঙ্গিত করে হুযূর কেবলা বলেন-) ওই দিকে যাঁরা বসে আছেন তাঁরাও সিপাহী, আমরাও সিপাহী। তারা ওয়ার্দি (ইউনিফর্ম) পরেছেন, আর আমরা পরিনি। আমরা যখনই বাংলাদেশে এসেছি, তখন, বিশেষ করে আজও ফোনে তাঁর সাথে আলাপ হয়েছে। আজ হযরত তাহের শাহ্ সাহেব হুযূরের ফোন এসেছে। তিনি জিজ্ঞাসা করছিলেন- গাউছিয়া কমিটির সভা হচ্ছে কিনা, হলে আমরা এখনো মিটিং এ যাইনি কেন? আমি বলেছি, আজ এখানে হরতাল হয়েছে। এ কারণে অনুষ্ঠানসূচীতে কিছুটা রদবদল করতে হয়েছে; প্রোগ্রাম শুরু হতে একটু বিল¤¦ হয়েছে। আমাদের যে উদ্দেশ্য, তাঁরও একই উদ্দেশ্য। আমি তাঁর মধ্যে এ ব্যাপারে যে আগ্রহ ও ব্যতিব্যস্ততা দেখেছি, তা আজকের প্রোগ্রামের জন্য অতি গুরুত্বগুর্ণ। তিনি তাঁর জীবদ্দশায় আমাদেরকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। আল-হামদুলিল্লাহ্!
ভাইয়েরা আমার! আমি এব্যাপারে হযরত তাহের শাহ্ সাহেব হুযূরের কথা বললাম। বিষয়টি এ পর্যন্ত সীমাবদ্ধ নয়, এতে হযরত তৈয়্যব শাহ্ রাহমাতুল্লাহি আলায়হিও রয়েছেন, হযরত খাজা চৌরভী রাহমাতুল্লাহি তা‘আলা আলায়হিও সামিল রয়েছেন। আমার আক্বার কৃপাদৃষ্টিও এর প্রতি রয়েছে আমার আক্বার দয়া এর সাথে রয়েছেন। কতোই মহান এ বিষয়!
বস্তুতঃ হযরত সৈয়্যদ আহমদ শাহ্ বিগত ১৯৫৪ খ্রিষ্টাব্দে এ মিশনের সূচনা করেছেন। আজ আমি সৈয়্যদ মুহাম্মদ আহমদ শাহ্কে সাথে নিয়ে খানক্বাহ্ শরীফের উপর থেকে দেখছিলাম। দেখলাম এ জামেয়া, খানক্বাহ্ শরীফ তো এখন একটি পূর্ণ ‘রিয়াসত’ (ুদ্র রাজ্য বিশেষ)-এ পরিণতি হয়েছে। (দ্বীন ও শরীয়তের) একটি বিরাট বাগানে পরিণত হয়েছে। এ মহান কাজ সমাধা করে এ পর্যন্ত আসার জন্য তিনি আপনাদেরকেই নির্বাচন করেছেন।
প্রত্যেক যুগ ও সময়ের একেকটি দাবী ও চাহিদা আছে। যুগের চাহিদানুসারে বাবাজী রাহমাতুল্লাহি তা‘আলা আলায়হি এসব কাজ সমাধা করেছেন। তিনি বাঁশখালীর শেখের খিলে এক মাহফিলে তাক্বরীর করছিলেন। তাক্বরীরের শুরুতে যখন আয়াত শরীফ- ‘‘ইন্নাল্লা-হা ওয়া মালা-ইকাতাহূ ইয়ুসল্লূ-না আলান্নাবিয়্যি; এয়া- আইয়্যূহাল্লাযী-না আ-মানূ-সল্লূ আলায়হি ওয়া- সাল্লিমূ তাসলী-মা’’ তিলাওয়াত করলেন, তখনতো দুরূদ শরীফ পড়া জরুরী ছিলো। কিন্তু ‘তাদের’ কেউই দুরূদ শরীফ পড়লো না। তাঁর সাথে যাঁরা ছিলেন, তাঁরা বলেছেন, এরপর বাবাজী এমন ‘জালাল’ অবস্থায় ছিলেন, এতই ক্রোধান্বিত ছিলেন যে, তাঁর চোখে তখন রক্তাশ্র“ ঝরার উপক্রম হয়েছিলো। আর আপন মুরীদদেরকে বসালেন এবং বললেন, ‘‘আমাদেরকে এখানে (নাজির পাড়া) একটি মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করতে হবে। সেখান থেকে যোগ্য ওলামা বের হবেন, সকাল-সন্ধ্যা অহরহ তাতে দ্বীনী শিা চলতে থাকবে।’’
আমি একদা একটি ফটোতে দেখছিলাম। বাবাজী দণ্ডায়মান ছিলেন। তাঁর মাথার উপর বাঁশের তৈরী ছাউনী (দালান তৈরী করার প্রাথমিক অবস্থায়) ছিলো। বাবাজীর সাথে আরো অনেকে ছিলেন। (আমি কারো নাম বলছিনা।) আমার বলার উদ্দেশ্য হচ্ছে-প্রাথমিক অবস্থায় এখানে বাঁশ-বেড়ার তৈরী ঘর দণ্ডায়মান ছিলো। তিনি ওটা দিয়ে শুরু করেছিলেন। (এটা হয়তো সেন্টারিং-এর দৃশ্য ছিলো, অথবা নির্মাণ সামগ্রী রাখার জন্য তৈরীকৃত সাময়িক ঘরের ফটো ছিলো। অন্যথায় জামেয়ার কার্যক্রম দালানেই আরম্ভ হয়েছিলো-প্রকাশক)
আজ দেখছি এ আযীমুশ্শান মাদরাসা, আযীমুশ্শান খানক্বাহ্ শরীফ! তদ্সঙ্গে এখানে তিনি খোদা ও রসূল-প্রেমের বাজার বসিয়েছেন। আজ মাত্র পঞ্চাশ/ষাট বছর হলো। যেখানে একদিন বাঁশ-বেড়া দাঁড়ানো ছিলো, সেখানে যখন আল্লাহর ওলীর হাত লাগলো, তাঁর বরকতময় ইশারা হলো, তখন আপনারা এত বড় প্রতিষ্ঠান কায়েম করেছেন; যাতে আজ প্রায় পাঁচ হাজার ছাত্র-ছাত্রী লেখাপড়া করছে। এরপর থেকে আরো মাদরাসা প্রতিষ্ঠালাভ করতে লাগলো। সুতরাং এ কাজও আপনাদের অব্যাহত রাখতে হবে।
এ মাদরাসা, এ সিলসিলাহ্ একটি মজবুত কিল্লা। পুরানা যুগে সিপাহীদের জন্য কিল্লা তৈরী করা হতো। যেখানে যুদ্ধ-বিগ্রহ হতো সেখানে সৈন্যদের সংরণের জন্য কিল্লা নির্মাণ করা হতো। আপনারাও তো সিপাহী, আমরাও সিপাহী। আমরা বলি-
‘‘সবসে আওলা ওয়া আ’লা হামারা নবী- সবসে বা-লা ওয়া ওয়ালা হামারা নবী’’
আমরা আযমতে মোস্তফার পতাকা উড্ডীন করে রেখেছি। বাতিলরা বলে-হুযূর -ই আকরামের সম্মান এতটুকু; এর থেকে কম করতে হবে, ইত্যাদি। আর আমরা বলি-
সবসে আওলা ওয়া আ’লা হামারা নবী-
সবসে বা-লা ওয়া ওয়ালা হামারা নবী।
আপনে মাওলা কা পেয়ারা হামারা নবী,
দো-নোঁ আলম কা দুলহা হামারা নবী-
কওন দে-তা হ্যায়? দেনে কো মুঁহ্ চাহিয়ে,
দেনে ওয়ালা হ্যায় সাচ্চা হামারা নবী।
নবীর মহত্ব বর্ণনা করা এমন বিষয়, যার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। আল্লাহ্ তা‘আলা এরশাদ ফরমান- ইন্নাল্লা-হা ওয়ামালা-ইক্বাতাহূ ইয়ুসল্লূ-না আলান্নাবীয়্যি; এয়া আইয়্যুহাল্লাযী-না আ-মানূ সল্লূ আলায়হি ওয়াসা সাল্লিমূ- তাসলীমা-। (নিশ্চয় আল্লাহ্ ও তাঁর ফিরিশ্তাগণ নবী-ই আক্রামের উপর দুরূদ পড়ছেন, (তাঁর মহত্ব বর্ণনা করছেন) হে ঈমানদারগণ! তোমরাও তাঁর উপর দুরূদ পড়ো এবং অতি যতœ সহকারে সালাম পড়ো!) যে কাজটির নির্দেশ দেয়া হয়েছে সেটা তারা ছেড়ে দিচ্ছে। নির্দেশও এমনি যে, সেটা অবশ্যই পালন করতে হবে। এমন নয় যে, ইচ্ছা হলে পালন করবে, ইচ্ছা না হলে ছেড়ে দেবে। আমরা এ নির্দেশ পালন করেই যাচ্ছি, এ নির্দেশের পয়গাম মানুষের কাছে নিয়ে যাচ্ছি, যাতে হুযূর- আক্রামের চর্চা হয়।
তখন মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠার প্রয়োজন প্রকট ছিলো। আল্লাহর অনুগ্রহক্রমে আপনারা মাদরাসা নির্মাণ করেছেন। এ সিলসিলার ঝাণ্ডাও বাবাজীর বাচ্চাদের হাতে রয়েছে। পান্তরে, বাতিলরাও তাদের ছোট ছোট শক্তি নিয়ে এগুচ্ছিলো। সাথে সাথে হুযূর-ই আক্রামের শানে বেয়াদবীও চলতে থাকে। বাতিলরা তাদের মতা দেখাতে লাগলো। মাথাচাড়া দিয়ে উঠছিলো। তখন বাবাজি সৈয়্যদ আহমদ শাহ্ সিরিকোটি সাহেব দেখলেন, বাবাজি সৈয়্যদ মুহাম্মদ তৈয়্যব শাহ্ সাহেব প্রত্য করলেন যে, বাতিল মাথাচাড়া দিয়েই যাচ্ছে। তখন তাঁরাও এ কথা প্রমাণিত করলেন যে, হুযূর-ই আক্রামের যাঁরা নাম নেন ও যাঁরা হুযূরের প্রেমিক ও প্রশংসাকারী তাঁরাও দুর্বল নন। তারা সীমাবদ্ধও নন। সুতরাং তিনি নিজের (বেলায়তী) মতা প্রদর্শন করলেন। আপনারা আপনাদের পূর্ণ সামর্থ্য নিয়ে এগিয়ে এসেছেন। মাদরাসার খিদমত করেছেন, জশ্নে জুলূসে ঈদে মিলাদুন্নবী (সাল্লাল্লাহু তা‘আলা আলায়হি ওয়াসাল্লাম) বের করেছেন। এ সবের প্রভাব এতোই কার্যকর হয়েছে যেমন- ‘স্বর্ণকারের শতসহস্র টুক্টাক্, আর কামারের হাতুড়ির এক আঘাত’’ অর্থাৎ ‘স্বর্ণকার হাজার বার টুক্টাক্ করে যতটুকু করতে পারে না,কর্ম্মকার তার হাতুড়ির একটি মাত্র আঘাতে তার চেয়ে বেশী কাজ সম্পন্ন করতে পারে।’ (উদাহরণ স্বরূপ একথা বলা হলো।)
হুযূরের রূহানী বাচ্চারা সারা বছর এমন দ্বীনী কাজ করতে থাকেন। তাঁরা চেষ্টারত থাকেন- কিভাবে হুযূর-ই আক্রামের শান-মান বৃদ্ধি পায়। যখন বাবাজির ফৌজ বের হয়, রসূলে আক্রামের আশিক্বগণ যখন লাখো লাখো সংখ্যায় বের হয়, তখন তা ওই কর্ম্মকারের আঘাতের মতো হয়ে বাতিলের উপর আঘাত করে। আ’লা হযরত বলেন-
ইয়ে রেযা কে নেযে কী মার হ্যায়,
জো বাতিল কে সীনোঁ মে ওয়ার হ্যায়।
অর্থাৎ এটা আহমদ রেযার বর্মের মার। যা বাতিলের বুকে গিয়ে আঘাত হানে। অনুরূপ, এসব খিদমত আমার আক্বার বর্মেরই আঘাত, হযরত সৈয়্যদ আহমদ শাহ্ সিরিকোটিরই আঘাত, যা বাতিলের বে গিয়ে লাগে। যখন জোরে শোরে জুলূস বের হয়, তখন বাতিলপন্থীরা নিজ নিজ ঘরে ঢুকে পড়ে। নিজেদের মুখ ঘোমটায় ঢেকে নেয়। আল্লাহর অনুগ্রহক্রমে আপনারা এখান থেকে জুলূস বের করতে শুরু করেছেন, আর এখন বাংলাদেশের কোণায় কোণায় জুলূস বের হতে আরম্ভ করেছে। যারা আগে জুলূস দেখলে চাদরে মুখ ঢেকে নিতো, তারাও আজ জুলূস বের করতে আরম্ভ করেছে।
আল্লাহ্ তা‘আলা এরশাদ ফরমান- ইয়ুরী-দূনা লিয়ুত্বফিঊ-নূরাল্লা-হি বিআফ্ওয়া-হিহিম্; ওয়াল্লা-হু মুতিম্মু নূ-রিহী ওয়া লাউ কারিহাল কা-ফিরূ-ন। (তারা চায় আল্লাহ্র নূরকে মুখের ফুৎকার দিয়ে নিভিয়ে দিতে, আর আল্লাহ্ তাঁর নূরকে পরিপূর্ণ করবেনই, যদিও অপছন্দ করে কাফিরগণ।) [সূরা সাফ্ : আয়াত-৮, পারা-২৮] তারা চাচ্ছে এ নূরকে, এ সূর্যকে, যা আলোকদীপ্ত হয়েছে, তাদের মুখের ফুৎকার দ্বারা নিভিয়ে দিতে। ওই আলোকোজ্জ্বল প্রদীপ, যা হুযূর-ই আক্রামেরই শান, কারো মুখের ফুৎকারেও কি নেভানো যেতে পারে? কখনো না।
নূরে খোদা হ্যায় কুফরকে আসর সে খান্দাহ্যন
ফূঁকূঁ সে ইয়ে চেরাগ বুঝায়া নেহীঁ যা সেক্তা।
(কুফরের অপৎপরতার কারণে আল্লাহর নূর আরো বেশী আলোকিত হয়; আরো অধিক শোভা নিয়ে হেসে ওঠে। মুখের ফুঁক দ্বারা এ প্রদীপকে নেভানো যায় না।)
ওইসব নির্বোধকে দেখুন! তারাও তাদের মুখের ফুঁক দ্বারা ওই প্রদীপকে নেভাতে চাচ্ছে! (এটাতো সম্ভব হয়নি, বরং নবীর মহত্ব ও মর্যাদার প্রচার আরো বেশি হয়েছে।)
এমন একটা সময় ছিলো, যার চাহিদানুসারে এ জামেয়া, এ আন্জুমান প্রতিষ্ঠিত হয়েছে, এ জুলূসের প্রবর্তন করা হয়েছে। এমনকি সময়ের চাহিদা ও দাবী যা যা ছিলো, তার সবই যথাসময়ে পূরণ করা হয়েছে। আজ থেকে ২৪/২৫ বছর পূর্বে একই কারণে ‘গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশ’ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে; কিন্তু এ দীর্ঘ ২৪/২৫ বছরেও এ কমিটির তেমন কোন উন্নয়নমূলক কাজ নজরে পড়ছে না। অবশ্য, আপনাদের প্রতি নির্দেশ হয়েছে। সুতরাং আপনারা বাংলাদেশের আনাচে-কানাচে সেটার শাখা-প্রশাখা কায়েম করেছেন। আজ এ প্রতিনিধি সভায় বেইজ যাঁদের গলায় শোভা পাচ্ছে- তাঁরা সবাই ‘গাউসিয়া কমিটি’র প্রতিনিধি। আজ কমিটির ২৫ বর্ষপূর্তি (সিল্ভার জুবিলী বা রজত জয়ন্তী) উদ্যাপনের কথা চলছে কিন্তু কমিটি এখনো যেন তার প্রাথমিক পর্যায় বা সোপান অতিক্রম করছে।
আমি, বাবাজি (হযরত ক্বেবলা তৈয়্যব শাহ্ রাহমাতুল্লাহি তা‘আলা আলায়হি)-কে জিজ্ঞাসা করেছিলাম- এ যে ‘গাউসিয়া কমিটি’ গঠিত হয়ে তার শাখা-প্রশাখা বিস্তার করছে। এ কমিটি গঠনের হিক্মত কি? এটা আবার কখনো ‘আন্জুমান’-এর প্রতিপ হয়ে দাঁড়াবে না তো? তখন বাবাজি হযরত তৈয়্যব শাহ্ রাহমাতুল্লাহি তা‘আলা আলায়হি বলেছিলেন, ‘‘আপনার প্রশ্নের জবাব তো আমি এখন দিচ্ছি না; সময়ই এ প্রশ্নের জবাব দেবে। হয়তো আমি তখন (এ জাহেরী) দুনিয়ায় থাকবো না।’’
আহলে সুন্নাতের কাজ দ্রুত গতিতে চলছে। যদি আমরা আমাদের কাজ নব উদ্যমে আরম্ভ করি, প্রতিটি অলিগলিতে, স্কুল-কলেজ, মাদরাসা, বাজারের দোকানগুলোতে, মোটকথা সর্বত্র আহলে সুন্নাতের বাণী পৌঁছানোর জন্য রাস্তায় বেরিয়ে পড়ি, তবে এ কাজ আরো বেগবান হবে। (এ পথে আমাদের কোন ভয় নেই। কারণ) আপনাদের হাতের উপর বাবাজি রাহমাতুল্লাহি তা‘আলা আলায়হির হাত রয়েছে। আপনাদের কোন ভয় নেই। আপনারা ভয় করবেন না। আপনাদের কোন তি কিংবা অসুবিধা হবে না। আপনাদের প্রতি বাবাজি রাহমাতুল্লাহি তা‘আলা আলায়হির কৃপাদৃষ্টি রয়েছে। হযরত জুনায়দ বাগদাদীর ঘটনা পড়–ন! তিনি এমনি এক পর্যায়ে বলেছিলেন- ‘‘আমি সরকার-ই দু’আলমের দামন ধারণ করে আছি।” দামন যখন ধারণ করেছেন, তখন তিনি গন্তব্যে পৌঁছিয়ে দেবেন। সমুদ্রে হাবুডুবু খেতে খেতে, হাত পা নাড়তে নাড়তে যদি মজবুত জাহাজে উঠে আসা যায়, তখন বাইরে ঝড়, তুফান চলতে থাকলেও নিরাপদে গন্তব্যে পৌঁছানো যায়। আলহামদু লিল্লাহ! আমরাও আমাদের কাক্সিত গন্তব্যে পৌঁছে গেছি।
কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে- বাবাজি তো আমাদেরকে এ কাজে নিয়োজিত করেছেন। এখন আমরা কি শুধু আমাদেরকে বাঁচাবো? পাড়া-প্রতিবেশীর জন্য কি কোন চিন্তা-ভাবনাই করবো না? আমাদের সন্তান-সন্তুতির চিন্তা, আশ-পাশের লোকদের চিন্তা, অন্যান্য মুসলমান ভাইদের চিন্তা কি কখনো করবো না? অবশ্যই করতে হবে। এজন্যই আজ গাউসিয়া কমিটির দায়িত্ব ওই চিন্তা-ভাবনা করা। কমিটি ও এর শাখাগুলোকে ভাবতে হবে এখন কী করা চাই। কাজতো আমরা করছি। মাদ্রাসা ইত্যাদিও প্রতিষ্ঠালাভ করছে। কিন্তু অন্যদিকে বাতিলপন্থীরা নতুন নতুন পদ্ধতিতে কাজ করে যাচ্ছে। এমতাবস্থায় কি তাদেরকে কাজ করতে দিয়ে আমাদের নিরব থাকা উচিৎ হবে, না তাদের লাগাম ধরে রুখে দিতে হবে? হ্যাঁ, তাদের রুখতে হবে। অবশ্য, তাদের রুখার জন্য কী করা চাই? তারা যদি ভারী হাতিয়ার নিয়ে ধেয়ে আসে, তখন কি তাদেরকে হাত দিয়ে রুখবে? যদি এসব লোক অলিতে-গলিতে ও বাজারে গিয়ে তাদের হাতিয়ার ব্যবহার করে, তবে তাদেরকে রুখার জন্য কি ওই পুরানা হাতিয়ার ব্যবহার করে ান্ত হলে চলবে? অবশ্যই আমাদের নিকট পুরানা যেসব হাতিয়ার আছে সেগুলোকেও সংরণ করতে হবে।
যেমন- গাউসিয়া কমিটির শাখা-প্রশাখাও গঠন করতে হবে, মাদরাসাও প্রতিষ্ঠা করতে হবে। আমি বলছি না- ওইসব কাজ ছেড়ে দিন, এ কাজগুলো করুন। জামেয়াগুলোও পরিচালনা করতে হবে, মাদরাসাও চালাতে হবে, সিল্সিলার কাজও চালিয়ে যেতে হবে। সাথে সাথে বাইরে থেকে আমাদের দ্বীনের উপর যেসব হামলা চালানো হচ্ছে তার মোকাবেলার জন্যও আমাদের অনুরূপ হাতিয়ারব্যবহার করতে হবে। আমাদের নিজেদেরকে বাঁচাতে হবে, আমাদেরও ভাইবোনদের বাঁচাতে হবে। হুযূর আলাইহিস্ সালাতু ওয়াস্ সালাম-এর উম্মতকে বাঁচাতে হবে।
আর এখন তো ফিৎনা দ্রুত ছড়িয়ে পড়েছে। ফিৎনা খুব দ্রুত গতিতে ছড়ায়। কিন্তু তার পরিণাম ভাল হয় না। আমি ঐতিহাসিক ঘটনার দিকে যাচ্ছি না। হুযূর- আক্রামের পবিত্র যুগের ঘটনাবলীরও কোন উদ্ধৃতি এখন দিচ্ছি না। আমি এ যুগের কথা বলছি। পাকিস্তানে এসব গোস্তাখ রাতের বেলায় পাহাড়ের উপর থেকে ডেকে ডেকে বলে, হে অমুক! আমরা আগামী কাল সকালে তোমাদের অমুককে যবাই করে ফেলবো। বাস্তবেও তারা সকালে এসে গণ-মানুষেরই সামনে মানুষ যবাই করে। আউলিয়া-ই কেরামের নিদর্শনগুলোকেও ছাড়ছে না। সেখানে গিয়ে, মাযারে গিয়ে যায়েরীনকে হত্যা করছে। মাযারের পবিত্রতা বিনষ্ট করছে। কিন্তু (পাকিস্তানের) আর্মি ও প্রশাসন নিরব থাকে। তাছাড়া, তারা জিহাদের নামে হাজার হাজার মানুষকে পাহাড়ের উপর থেকে ফেলে দিয়ে হত্যা করেছে। টেনে-হিঁছড়ে নিয়ে গিয়ে গর্ত ও নদীতে ফেলে দিয়েছে। সম্মানিত মানুষকে অপমান করে লাশ বানিয়ে নিপে করেছে। অতি দ্রুতগতিতে এসব অপকর্ম সম্পন্ন করেছে। আমাদেরকেও ফিৎনার পথ রুদ্ধ করতে হবে। নিরাপত্তা ও শান্তির পথ খুঁজে বের করে মানুষকে ওই পথে চালাতে হবে।
এ েেত্র আউলিয়া কেরামের মিশনই একমাত্র মুক্তির পথ। বাতিলগণ এ মিশন থেকে মানুষকে সরাতে চায়। যখন থেকে মানুষ আউলিয়া-ই কেরামের মিশন থেকে সরে গেছে, তখন থেকে তারা ফিৎনার শিকার হয়েছে। আমাদের কাজ বাতিলের সাথে লড়াই করা; হযরাত (আউলিয়া-মাশাইখ)-এর দামনের সাথে মানুষকে সম্পৃক্ত করা, যাতে ফিৎনার পথ রুদ্ধ করা যায়। দুনিয়া থেকে এখন নিরাপত্তা ও শান্তি চলে গেছে। এমতাবস্থায় নিজেদেরকে ও আমাদের সন্তান-সন্তুতিকে বাঁচাতে হবে। মুসলমানদের রা করতে হবে। যদি আমরা এ কাজটি না করি, আল্লাহ্ মা করুন! আমরা যদি এ কাজ থেকে বিরত থাকি, তবে হে আমার সাথীরা! আমাদের আক্বা নারায হবেন, তাজদারে মদীনা অসন্তুষ্ট হবেন। লোকেরা গোমরাহ্ হতে থাকবে। কিন্তু ইসলাম ও মুসলমানদের এ কান্তিকালে এর খিদমত আন্জাম দেয়া আপনাদের দায়িত্বে বর্তানো হয়েছে। আল্লাহর মিশন আপনাদের হাতে দেয়া হয়েছে। অবশ্য আপনারাও দায়িত্ব পালনের প্রমাণ দিয়েছেন। তখন এক সময় ছিলো। বাবাজি রাহমাতুল্লাহি তা‘আলা আলায়হি আয়াত শরীফ পড়েছিলেন। কেউ সেটার জবাবদাতা ছিলো না। (তার প্রতিকারও তিনি করেছেন।) আজ চতুর্দিকে দুরূদ শরীফের সুরে আকাশ-বাতাস মুখরিত হচ্ছে। কবি বলেন-
আজ উন্কী মাহাক্নে দিলকে গুন্ছে খিলা দিয়ে
জিস রাহ্ চল দিয়ে কূসে বসা দিয়ে।
(আজ তাঁর খুশ্বু হৃদয়ের বৃে ফুল ফুটিয়েছে। তিনি যে পথ দিয়ে গিয়েছেন সেটাকে আবাদ করে দিয়েছেন।)
তিনি (হযরত বাবাজি সিরিকোটি রাহমাতুল্লাহি তা‘আলা আলায়হি) আজ বাংলাদেশের অলিতে গলিতে পর্যন্ত যিকরে মোস্তফা (হুযূর করীমের চর্চা) ছড়িয়ে দিয়েছেন। মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করে দিয়েছেন। নিজেরা দুরূদ শরীফ পড়ছেন, অন্যান্য লোকও পড়ছেন। এমনকি বাতিলগণও হিদায়ত লাভ করে দুরূদ শরীফ পড়ছে। এ ইশক্বে মোস্তফার উন্নতি সাধন আপনাদেরই দায়িত্বে বর্তানো হয়েছে। অবশ্য ইশক্বের পাঠশালার ধরণ কিছুটা ভিন্ন। কবি বলেন-
মকতবে ইশ্ক্ব কা আন্দায নিরালা হ্যায়।
উস্কো ছুট্টি নেহীঁ মিলী, জিস্নে সবক ইয়াদ কিয়া।
(ইশক্বের পাঠশালার নিয়ম-নীতি ভিন্ন ধরনের। এখানে ওই শিার্থী ছু’টি পায় না, যে সবক হৃদয়স্থ করেছে।)
এমনিতে মাদ্রাসা ও স্কুলগুলোতে নিয়ম হচ্ছে- যে ছাত্রটি সবক শিখে ফেলে তাকে শিক বলেন- শাবাশ! তুমি যেহেতু সবক শিখে নিয়েছো, সেহেতু তোমার ছুটি! তুমি যেতে পারো! কিন্তু এ ইশক্বের পাঠশালায় আপনারা যেহেতু সবক শিখে নিয়েছেন, সেহেতু আপনারা ছুটি পাবেন না। গাউসিয়া কমিটির দায়িত্ব আপনাদের পালন করতে হবে। এ কাজ আপনাদেরই দায়িত্বে। একথা আমি বলছি না। আমি টেপ রেকর্ডারের প্লেয়ার-যন্ত্র মাত্র। যেমন- মাওলানা সাহেব ওয়ায-তাক্বরীর করেন। সেটা রেকর্ডার রেকর্ড করে, আর প্লেয়ার সেটাই শোনায়। খিদমতের এ সব কথাও আমি বলছি না, হযরত তাহের শাহ্ সাহেব ক্বেবলা বলছেন না। এটা আমার আক্বার ফরমান। মাশা-ইখ হযরাতের ইচ্ছা। তাঁরা আপনাদের থেকে কাজ নিতে চান। আমরা তো সিপাহী (সিপাহ্সালারের নির্দেশ পালন করা আমাদের কাজ)। আমরা এখানে এসেছি মেহমান হিসেবে। এ সফরে কখনো এখানে আসি, কখনো ওখানে যাই। কাজ কিন্তু আপনাদেরকেই সমাধা করতে হবে।
দেখুন! কান্ত হয়ে পড়বেন না। অলসতা করবেন না। কেউ যদি অলসতা করে, তবে আল্লাহ তা‘আলা তার প্রতি অসন্তুষ্ট হবেন। এ অলসতার পরিণতিও আজব ধরনের! আল্লাহ্ তা‘আলা এরশাদ ফরমান-
ওয়া ইন্ তাতাও ল্লাউ ইয়াস্তাবদিল কাউমান গায়রাকুম আল আয়াত…।
অর্থাৎ যদি তোমরা মুখ ফিরিয়ে নাও, যে দায়িত্ব বর্তানো হয়েছে তা পালন করতে গিয়ে যদি অলসতা করো, আর একথা ভাবো যে, ‘আমরাতো জুলূস বের করছি, ঈদে মিলাদুন্নবী উদ্যাপন করছি, মাদরাসাও পরিচালনা করছি। আবার এর উপর হযরত তাহের শাহ্ সাহেব ক্বেবলা বলছেন- গাউসিয়া কমিটিতেও এসে কাজ করো, আমরা এতোগুলো কাজ করতে পারবো না!’ আমার কথা হলো আপনারা একথা ভাবতেও পারবেন না! আল্লাহ্ তা‘আলা এরশাদ ফরমাচ্ছেন-
‘‘ফাইন তাতাওয়াল্লাউ’’ যদি তোমরা মুখ ফিরিয়ে নাও, ‘‘ইয়াস্তাবদিল ক্বাউমান গাইরাকুম’’- এ জায়গায় তোমাদের ব্যতীত অন্য জনগোষ্ঠীকে কাজে লাগিয়ে দেবেন। আপনাদেরকে ডিউটি থেকে সরিয়ে দেবেন। এটা কতো ভয়ানক কথা! আল্লাহ্ তা‘আলা অন্য কাউকে স্থলাভিষিক্ত করে দেবেন। কাজতো আল্লাহ্ পাক নেবেনই। কাজ করতে করতে আগে বাড়তে হবে; পেছনে যাবেন না। এ কথার দায়িত্ব তো আল্লাহ্ তা‘আলা আপন বদান্যতায় নিয়েছেন- কাজ কার থেকে নেবেন।
কাজ করার জন্যও বিশেষ বিশেষ লোক থাকে। এ বিশেষ লোক হিসেবে আল্লাহ্ তা‘আলা আপনাদেরকে বেছে নিয়েছেন। কথিত আছে যে, মুহাব্বতের জন্যও কিছু খাস্ দিল্দার লোক থাকেন। আর ওই খাস দিলদার লোক আপনারাও। যদি আমরা অনুপযুক্ত প্রমাণিত হই তবেই তো ‘ইয়াস্তাবদিল ক্বাউমান’ আল্লাহ্ অন্য জনগোষ্ঠীকে নিয়ে আসবেন। বলবেন- ‘তোমরা পেছনে সরে দাঁড়াও। অন্য জনগোষ্ঠী একাজ সমাধা করবে।’ সুতরাং খোদা না করুন, এ কাজ যদি আমরা করতে ব্যর্থ হই, তবে তা আমাদের অকৃতকার্যতার পরিচায়ক হবে। এ কেমন মারাত্মক অকৃতকার্যতা? দুনিয়াতেও অকৃতকার্য, আখিরাতেও অকৃতকার্য। এ কারণে কাজ আপনাদেরকে করতেই হবে। হযরাত এ কাজ আপনাদের দায়িত্বে অর্পণ করেছেন। আজই আপনাদের সিদ্ধান্ত নিতে হবে। আর যে সব লোক কান্ত- পরিশ্রান্ত হয়ে গেছেন, তাঁরা যেন চুপিসারে কেটে পড়েন। কিন্তু আপনাদের দ্বারা এমনটি হতে পারে না। হযরত ইমাম হোসাঈন রাদ্বিয়াল্লাহু তা‘আলা আনহু তাঁর সাথীদের বলেছিলেন, খুব সম্ভব এটা তাঁর শাহাদাতের পূর্ববর্তী রাতে বলেছিলেন, ‘‘হে আমার সাথীরা! এটা অতি মুশকিল কাজ। মৃত্যু সামনে দাঁড়িয়ে আছে। এর হাত থেকে বাঁচার উপায় নেই।
আমি দৃঢ়তার সাথে দ্বীনের হিফাযত করবোই। এটা বড়ই সংকটপূর্ণ সোপান। যদি তোমরা চাও, তবে আজ রাতেই তোমরা চলে যেতে পারো। যদি আমার সামনে থেকে চলে যেতে তোমাদের লজ্জাবোধ হয়, তবে আমি চেরাগ নিভিয়ে নিচ্ছি। অন্ধকারের মধ্যেই তোমরা চলে যেতে পারো।’’ কিন্তু তাঁর সাথীরা বলেছিলেন, ‘‘আমরা আপনাকে ছেড়ে যেতে পারি না।’’ এ মিশনেও আপনাদের মধ্যে হোসাইনী জযবাহ্ থাকতে হবে। এ জয্বাহ্ (উদ্দীপনা) নিয়েই আপনাদেরকে এগিয়ে যেতে হবে। কাজের প্রয়োজন। যদি কেউ একথা বলেন- ‘আমাদের এসবের দরকার নেই।’ (তবে এটাতো হতেই পারে না।)
বাজারে গিয়ে লোকেরা সওদা টেষ্ট করে নেয়। আমাদের পানি রাখার প্রয়োজনে আমরা বাজার থেকে কলসী কিনি; কিন্তু কেনার আগে কলসীটাকে ভাল করে দেখে নিই-তাতে কোন ছিদ্র আছে কিনা। যদি ঠিকটাক পাই তবে সেটা উপরে তুলে বাজিয়ে দেখি- আওয়াজ সঠিক আসছে কিনা। যদি আওয়াজও সঠিক আসে তবেই সেটা খরিদ করি। বাবাজি আপনাদেরকেও সওদা করেছেন। কিন্তু যারা কান্ত হয়ে পড়েছেন, আর বলেন- ‘আমাদের এখন ছুটির দরকার, তাহলে ছুটি তো নেই-ই। (শ্রোতাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে হযরত পীর সাহেব ক্বেবলা বলেন), ‘‘এমন কেউ আছেন কি?’’ (সবাই বললেন, ‘‘না’’।)
(হুযূর ক্বেবলা খুশী হয়ে পবিত্র ক্বোরআনের আয়াতের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন-)
আল্লাহ্ তা‘আলার ফরমান হচ্ছে- ‘‘ওয়ালতাকুম মিন্কুম উম্মাতুঁই ইয়াদ্‘ঊ-না ইলাল্ খায়রি ওয়া ইয়া’মুরূ-না বিল মা’রূ-ফি ওয়া ইয়ানহাউনা ‘আনিল মুনকারি;’’ (তরজমা: তোমাদের মধ্য থেকে একটা দল এমনই হওয়া চাই যে, তারা সৎকাজের প্রতি ডাকবে, ভাল কথার হুকুম দেবে এবং মন্দ কাজে বাধা দেবে। আর এসব লোক সফলকাম।) [পারা-৪, রুকূ-২’ কান্যুল ঈমান] নেকীর দিকে নম্রতা ও ভালবাসার সাথে মানুষকে আহ্বান করতে হবে।
এ কাজ সিলসিলাও করছে, জামেয়াগুলোও করছে, একই কাজ গাউসিয়া কমিটিকেও করতে হবে। তবে প্রত্যেক কাজের একটি স্বতন্ত্র ধরন রয়েছে। এ দেখুন, ‘গাউসিয়া তারবিয়াতী নেসাব’ (প্রণীত ও প্রকাশিত) হয়েছে। এখানে মাওলানা মুহাম্মদ আবদুল মান্নান সাহেবও আছেন, তাঁর সাথে অন্যান্য দ আলিমগণও রয়েছেন। তাঁরা আমাদের হাতে ‘গাউসিয়া তারবিয়াতী নেসাব’ পৌঁছিয়েছেন। এ ‘গাউসিয়া তারবিয়াতী নেসাব’ প্রত্যেকের নিকট থাকা চাই। এটা পড়তে হবে। এটাও পড়বেন, সাথে সাথে ক্বোরআন মজীদ এবং হাদীস শরীফও পড়বেন। আমি মাওলানা মুহাম্মদ আবদুল মান্নান সাহেবের সাথে কথা বলেছি। মাশাআল্লাহ! তিনি বলেছেন- বাংলা ভাষায় ক্বোরআন মজীদের তরজমা (অনুবাদ)ও হয়েছে, তাফসীরও হয়েছে- ‘কান্যুল ঈমান ও খাযাইনুল ইরফান’ এবং ‘কান্যুল ঈমান ও নূরুল ইরফান’ হাদীস শরীফও হয়েছে; যেমন- ‘মিরআত শরহে মিশকাত’। আপনাদের মাহফিলগুলোতে এ তরজমা ও তাফসীর অনুবাদ ও ব্যাখ্যা গ্রন্থগুলো) থেকে বয়ান করবেন, তরবিয়াতী নেসাব থেকেও। আমাদের বুনিয়াদী কাজ হচ্ছে- ক্বোরআনের সাথে সম্পর্ক স্থাপন করা। আমাদেরকে একথা বুঝতে হবে যে, মুসলিম উম্মাহ্র ক্বোরআনের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করা কতোই ভয়ঙ্কর!
আপনারা একটি বিষয় ল্য করেছেন, মসজিদগুলোতে এটা দেখা যায় যে, বাতিল ফির্কাগুলো ক্বোরআনকে পেছনে ঠেলে দেয় আর তাদের তাবলীগী নেসাবকে এগিয়ে দেয়। আর আমাদের ডাকতে হবে ক্বোরআনের দিকে। এখানে একটি বুঝার বিষয় রয়েছে। তা হচ্ছে এ যে ‘তারবিয়াতী নেসাব’ তৈরী করা হয়েছে তা আমাদের সিল্সিলার পরিচয় বহন করে। কিন্তু মূল মকসূদ (উদ্দেশ্য) হচ্ছে ‘ক্বোরআন’। সুতরাং সাথে সাথে ক্বোরআনের চর্চাও চালিয়ে যেতে হবে। যেমন-প্রত্যেক মাহফিলে পবিত্র ক্বোরআন থেকে, হোকনা একটি দু’টি আয়াত একজন তাফসীরসহ পড়বেন, আর সবাই শুনবেন। তারপর ‘হাদীস-ই রসূল’ এবং ‘গাউসিয়া তারবিয়াতী নেসাব’ থেকেও একই নিয়মে পড়বেন ও শুনবেন। ‘গাউসিয়া নেসাব’ থেকে আমলের বিষয়গুলোও পড়বেন। হুযূর ক্বেবলা মাওলানা মুহাম্মদ আব্দুল মান্নান’র উদ্দেশ্যে বলেন) ক্বোরআন মজীদ ও হাদীস শরীফ থেকে কিছু বিষয়বস্তু নির্বাচন করে দিতে হবে।
এর কর্ম-পদ্ধতি হচ্ছে- প্রত্যেক বৃহস্পতিবার আসরের পর, আসরের নামাযের পর, এ কাজের জন্য বিভিন্ন ‘টীম’ তৈরী করবেন। মহল্লায়-মহল্লায়, অলিতে গলিতে ও বাজারগুলোতে আর যেখানে যেখানে প্রয়োজন মনে করবেন তিন-তিন, চার-চার, পাঁচ-পাঁচ জনের টীমগুলো গিয়ে মানুষকে দাওয়াত দেবেন-‘‘ভাই! মাগরিবের নামাযের পর অমুক মসজিদে একটি সংপ্তি দ্বীনী মাহফিল হবে। আসুন! মাহফিলে ক্বোরআন-হাদীসের আলোকে আলোচনা (বয়ান) হবে।’’ যে ক্বোরআনকে আল্লাহ তা‘আলা আমাদেরকে হিদায়তের জন্য দিয়েছেন, তা থেকে সারগর্ভ আলোচনা হবে। গণমানুষকে একথা বুঝানোর চেষ্টা করবেন যে, আমরা ক্বোরআনকে ছেড়ে দেয়ার কারণে আজ লাঞ্ছিত হচ্ছি। আল্লামা ইকবালও একথা বলেছেন-
উয়হ্, যমানে মে মু‘আয্যায থে মুসলমাঁ হো-কর,
আওর তোম খা-র হুয়ে তা-রেকে ক্বোরআঁ হো-কর।
অর্থ: মুসলমানী নিয়ে তারা মুখ্য ছিলো ধরা তলে, আর তোমরা ক্বোরআন ছেড়ে যাচ্ছো আজি রসাতলে। [জাওয়াব-ই শেক্বওয়া] অর্থাৎ মুসলমানদের পারস্পরিক সম্পর্কও দুর্বল হয়েছে ক্বোরআনকে ছেড়ে দেয়ার কারণে। বাতিল ফির্কাগুলোর কাণ্ড দেখুন! তারা সুকৌশলে ক্বোরআনকে পেছনে ঠেলে দিয়ে তাদের নেসাবকে এগিয়ে দিয়েছে। এভাবেই তারা এগিয়ে চলেছে। আমরা কিন্তু ক্বোরআনকে আগে আগে রেখে, আমাদের নেসাবকে সাথে রেখে এগিয়ে যাবো। ইন্শা-আল্লাহ্! আমরা এ কাজ শুরু করবো।
তারপর মাগরিবের নামাযের পর থেকে এশা পর্যন্ত এ দাওয়াতী মাহফিল করবেন। মসজিদগুলোতে এশার নামায যথাসময়ে সম্পন্ন করে নেবেন। আর কতটুকু সময় লাগে তা-ই নেবেন। অবশ্য মসজিদ ছাড়া অন্যত্র, যেমন-এখানে (খানক্বাহ্ শরীফ) ইচ্ছা করলে আমরা এশার নামায একটু দেরীতেও সম্পন্ন করতে পারি। এ কাজের জন্য যতটুকু সময়ের দরকার তা অবশ্যই ব্যয় করবেন। সাথী-বন্ধুদের এতে সামিল করবেন, যথানিয়মে এ প্রোগ্রামকে বাস্তবায়িত করবেন। যেসয জায়গায় আমাদের গাউসিয়া কমিটি আছে, সে সবস্থানে ভাইদের সাথে আলিমদেরকে সামিল করবেন। আমি আলিমদের উদ্দেশ্যেও বলছি- আপনাদেরও এ কাজে অংশগ্রহণ করতে হবে। আপনাদেরও সময় দেয়া দরকার। গাউসিয়া কমিটি ও এর শাখাগুলো এ কাজের মনিটরিং করবে। এটা অতি প্রয়োজনীয়। তারা এসব কাজের রেকর্ড সংরণ করবেন।
আমাদের গাউসিয়া কমিটির চেয়ারম্যান আপনি এগিয়ে আসুন! আপনি আরো তৎপর হোন! আপনার দায়িত্ব পালনে স্থির ও অবিচল থাকুন! বাতিলের সাথে মোকাবেলা করতে হবে! জওয়ানদের মতো আপনাকে কাজ করতে হবে। কমিটিগুলোর আপনাকে খবর রাখতে হবে। সেগুলো সম্পর্কে পূর্ণ অবগতি না থাকলে চলবে না।
এটা একটা জিহাদ। যুদ্ধের ময়দানে এক ধরনের জিহাদ। এটাও দ্বীনী/এক ধরনের জিহাদ। এটা নাফ্সের সাথে জিহাদ। এটা বৃহত্তর জিহাদ। একদা ময়দানে কুফর ও কাফিরের সাথে জিহাদ ছিলো। সাহাবা-ই কেরাম যুদ্ধ করে ফিরে এসেছেন। হুযূর-ই আকরামের দরবারে বর্ণনা দিচ্ছিলেন কে কিভাবে যুদ্ধ করেছেন, কতজন শহীদ হয়েছেন, কতজন জখমপ্রাপ্ত হয়েছেন। কে কতজন কাফিরকে কতল করে জাহান্নামে পৌঁছিয়ে দিয়েছেন ইত্যাদি। তখন হুযূর-ই আকরাম সাল্লাল্লাহু তা‘আলা আলায়হি ওয়াসাল্লাম এরশাদ করলেন- ‘‘এখন জিহাদে আসগর থেকে জিহাদে আকবরের দিকে যাও! ছোটতর জিহাদ থেকে বৃহত্তর জিহাদের দিকে অগ্রসর হও! আশাদ্দুল জিহাদি জিহাদুল হাওয়া।’’ (কঠিনতর জিহাদ হচ্ছে নাফ্স বা প্রবৃত্তির সাথে জিহাদ করা)। দেখুন! যে জিহাদের মধ্যে কাফিরদের মোকাবিলা ছিলো, যেখানে জীবন-মৃত্যুর ব্যাপার ছিলো, সেটা ছিলো ছোটতর জিহাদ। আর যে কাজ আপনাদের দ্বারা নেয়া হচ্ছে সেটা হচ্ছে জিহাদে আকবর (বড়তর জিহাদ)। এ জিহাদেও আপনাদেরকে কামিয়াব হতে হবে। জিততে হবে। এ জন্য কর্মতৎপর হতে হবে, কিছু সময় ব্যয় করতে হবে। কঠোর পরিশ্রম করতে হবে।
আপনারা যখন এ কাজ শুরু করবেন, তখন বাতিল ফির্কাগুলো পেরেশান হয়ে যাবে। তখন বাতিল ফির্কাগুলো আপনাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রও করতে পারে; যাতে আপনাদের কাজ রুখে যায়। সুতরাং এমন যেন না হয় যে, কিছুদিন এ কাজ করবেন, তারপর স্তব্ধ হয়ে যাবেন। না, আপনাদেরকে এ দায়িত্ব (যিম্মাদারী) পালনই করতে হবে। এ কাজে অংশগ্রহণ করতে হবে। এ কাজ করতেই হবে। আমি কিন্তু মৌখিক জমা-খরচে বিশ্বাস করি না। হযরাতে কেরামও রাখেন না কারণ, মৌখিক জমা, খরচও হয়ে যায়। তাই এ কাজ জযবাহ্ নিয়ে, আগ্রহের সাথে করতে হবে। বাতিল আমাদের ঘরে ঢুকে পড়ছে, তাদের অশুভ দৃষ্টি এখন আমাদের ছেলেমেয়েদের প্রতি। তাদের দৃষ্টি এখন আমাদের প্রতিটি জিনিষের দিকে। এখন যদি আমরা নিদ্রাবিভোর হয়ে থাকি, তখনতো তারা আরো বে-পরোয়া হয়ে যাবে। এর পরিণাম কি হবে?
আল্লাহ্ তা‘আলা এরশাদ করেছেন- ‘‘ইন্নাল্লাহা লা- ইয়ুগায়্যিরু মা- বিক্বাউমিন হাত্তা- ইয়ুগায়্যিরু- মা- বি আন্ফুসিহিম।’’ (নিশ্চয় আল্লাহ তা‘আলা কোন জনগোষ্ঠীর ভাগ্য পরিবর্তন করেন না যতণ না তারা তাদের ভাগ্য পরিবর্তন করে।) আল্লাহ তা‘আলা একথাও এরশাদ করেছেন, যা আমি পূর্বেও উল্লেখ করেছি, যদি তোমরা অলস হয়ে যাও তবে আল্লাহ তা‘আলা অন্য জনগোষ্ঠীকে তোমাদের স্থলে নিয়োগ করবেন। তারা বলবে, তোমরা পেছনে যাও, এ কাজ তোমাদের দ্বারা হবে না। এটা তোমাদের সাধ্যে নেই।’ সুতরাং আমাদের অবস্থা আমাদেরকেই বদলাতে হবে। এজন্য প্রস্তুতি আমাদেরকেই নিতে হবে। আজই আমাদেরকে ডিসাইড করতে হবে। ফয়সালাকারী আলোচনা করে নিতে হবে। আমরা চুপ করে বসে থাকলে তো বাতিল এগিয়ে যাবে। সুতরাং বাতিলকে আপনাদেরকেই রুখতে হবে। ‘‘আমরা বাতিলকে রুখবই’’-এ জয্বা আমাদের থাকতে হবে। অবশ্য, কাজের জন্য চাই জোশ, আর কাজ করতে বের হলে প্রয়োজন হবে হুঁশ। বাতিলদেরকে আর আমরা পথভ্রষ্ট করতে দেবো না।
এ কাজের জন্য ‘বিস্তরাহ্’ (বিছানা ইত্যাদি) বহন করতে হবে না। বিছানা ইত্যাদির উপর তো আমাদেরই সাওয়ার হবার কথা। তা আমাদের উপর কেন সওয়ার হবে? এটাতো ‘নেছার’ বা স্বাভাবিক নিয়মের পরিপন্থী। সুতরাং যেসব জায়গায় আপনাদের সাথী (সহকর্মী) আছেন, যেখানে আমাদের মারকিয (শাখা-প্রশাখা, সুন্নী ও পীরভাই) আছে, ওই জায়গার জন্য বের হোন! যেখানে গাউসিয়া কমিটির শাখা-প্রশাখা রয়েছে, ওখানে প্রোগ্রাম তৈরী করুন! আমাদের সংখ্যা তো, আলহামদু লিল্লাহ্; ছোট নয়, অনেক বড়। কাজেই, হযরাতেরও উদ্দেশ্য এ নয় যে, আমরা বসে থাকি। তাঁরা চান আমরা ময়দানে বের হয়ে পড়ি।’ ‘ইন্শা-আল্লাহ্! আমরা অবশ্যই বের হবো! এটা কোন মা’মূলী কাজ নয়। তাই হিকমতের সাথে আমরা বের হবো। বাহ্যত! এটার প্রকৃতি যাই মনে হোক না কেন? এর ফলাফল অতি চমৎকার। হুদায়বিয়ার সন্ধির ধারাগুলো বাহ্যত আমাদের দুর্বলতার পরিচায়ক বলে মনে হয়েছিলো। কিন্তু তা ছিলো হিকমত বা প্রজ্ঞায় ভরা। এটা মহা বিজয়ের দরজা খুলে দিয়েছিলো। কাফিরগণ হুযূর আকরাম সাল্লাল্লাহু তা‘আলা আলায়হি ওয়াসাল্লামকে মক্কায় বহু কষ্ট দিয়েছিলো। তাঁকে হিজরত করতে বাধ্য করেছিলো। হুযূরের সাথে সাহাবা-ই কেরামও হিজরত করেছেন- কেউ আগে, আর কেউ পরে। কিন্তু এসব কাজেই অগণিত হিকমত ছিলো। সুতরাং আমাদের মধ্যেও কাজের জন্য চাই জোশ ও উদ্দীপনা, আর কাজ সম্পাদন করতে গিয়ে চাই হিকমত বা সুন্দর সুন্দর কৌশল।
আমাদের এ কাজ করতে হবে বড়ই নম্রতার সাথে। ভালবাসার সাথে, যখন আমরা কাজ শুরু করবো তখন হিকমতের সাথে করবো। সঠিক দিক-নির্দেশনা মেনে চলবো। এটা অত্যন্ত জরুরী।
এ প্রসঙ্গে আমি আলোচনা করেছি। এ মুহূর্তে আমাদের চাই একটি ‘থিংক ট্যাংক’ (চিন্তা-গবেষণার বিভাগ)। প্রত্যেক বিষয়ের জন্য একটি বিশেষ ‘জনগোষ্ঠী’ থাকা দরকার। যেমন কেউ থাকেন লেখক, কেউ বক্তা, কেউ পাঠক ও গবেষক। আমি আরো আলোচনা করবো। এ থিংকট্যাংকার গাউসিয়া কমিটি সুন্দরভাবে পরিচালনা পন্থা-পদ্ধতি তৈরি করবেন। ‘ফিডব্যাক’ বের করবেন। বিগত সময়গুলোতে আমাদের সামনে যে সব সমস্যা এসেছে, আগামীতেও আসতে পারে। সেগুলোও তাতে আসতে হবে। তাঁরা বসে গভীরভাবে পর্যবেণ ও চিন্তা-ভাবনা করে সেগুলোর সমাধান বের করবেন। আমরা যদি হিকমত ছেড়ে দিয়ে শুধু জয্বাহ্ (আবেগ) নিয়ে চলি, তবে আমরা হয়তো কাক্সিত ফল পাবো না। এ কাজের জন্য জযবাহ্ও থাকতে হবে, হিকমতও। এ দু’টি সাথে নিয়ে এগুতে হবে। আপনারা সিদ্ধান্ত নিন। ইন্শা-আল্লাহ, আল্লাহ্ তা‘আলাই আপনাদের হিফাযত করবেন। হযরাতে কেরামের কৃপাদৃষ্টির সন্ধানে থাকুন! তাঁদের কৃপাদৃষ্টি আমাদের প্রতি থাকলে, ইন্শা-আল্লাহ্, আমরা কামিয়াব হবোই। আল্লাহ্ তা‘আলা নসীব করুন! আমীন!!
আরো একটি কথা আমি বলতে চাই। তা হলো-
গাউসিয়া কমিটি ও এ মিশনের জন্য যদি কোন পরামর্শের প্রয়োজন হয়, তবে টেলিফোনেও কথা হতে পারে। আমি আসতেও পারবো। এমনকি এক ঘন্টার জন্যও যদি প্রয়োজন হয়, তবে আমি এসে যাবো ইন্শা-আল্লাহ! সৈয়্যদ মুহাম্মদ আহমদ শাহ্ও আসতে পারবে। যখনই এতদুদ্দেশ্যে প্রয়োজন হবে, আমরা দৌঁড়ে এসে যাবো, ইনশা-আল্লাহ্! আমাদের চাই কাজ।
আর একটি কথা। তা হচ্ছে- আপনারা কখনো ভুলবেন না যে, এ ‘গাউসিয়া কমিটি’ যা বাংলাদেশে গঠিত হয়েছে, যদি আমরা কাজ করি, তবে আপনারা দেখবেন- এটার কাজ সমগ্র দুনিয়ায় ছড়িয়ে পড়বে। আজ গোটা দুনিয়া উদ্গ্রীব হয়ে আছে। ইনশা-আল্লাহ্ এটাকে গোটা দুনিয়ায় প্রসারিত করতে হবে।
আপনারা ভাইদের আমি পুনরায় শোক্রিয়া আদায় করছি, ধন্যবাদ জানাচ্ছি। এ সব কাজ, মাদ্রাসা পরিচালনা, গাউসিয়া কমিটি চালানো- একেক টি বড় বড় কাজ। মুহাব্বত ও জয্বার সাথে এগুলো এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। আমাদের উদ্দেশ্য তো আল্লাহ্র সন্তুষ্টি অর্জন করা। আল্লাহ্র সন্তষ্টি রয়েছে, তাঁর মাহবূব সাল্লাল্লাহু তা‘আলা আলায়হি ওয়াসাল্লাম-এর সন্তুষ্টির মধ্যে, তাঁর মাহবূবের সন্তুষ্টি নিহিত আছে তাঁর মাহবূবের আশিক্বদের সন্তুষ্টির মধ্যে, ওলী ও গাউসগণের সন্তুষ্টির মধ্যে। হুযূরের সন্তুষ্টি, ইনশা-আল্লাহ্, আমাদেরকে আল্লাহ্ পর্যন্ত পৌঁছাবে।
আপনারা ধন্য। এটা হযরাতের প থেকে একটা তোহ্ফা। এটাকে সংরণ করুন! আপনারা ভাগ্যবান। এ সৌভাগ্যের জন্য আপনাদের গর্ববোধ করা দরকার। তাকাব্বুর বা অহংকার নয়, আল্লাহর শোকরিয়া আদায় করা চাই। গোটা দুনিয়াও এমন সৌভাগ্যের জন্য হা-পিত্যেশ করছে। আল্লাহ তা‘আলা কাজ আমাদের থেকে নিচ্ছেন! আল্লাহ্ তা‘আলা আপনাদেরকে কাজের উপর দৃঢ়তা দান করুন! আমীন!!
ওয়া -আ-খির দাওয়া-না আনিল হামদু লিল্লাহি রাব্বিল আলামীন!!।

অঙ্গীরকারনামা
আমাদের মনে হয়, আমরা যে কাজটি করতে যাচ্ছি, আমরা আজ যে কাজের জন্য প্রস্তুতি নিয়েছি, সেটাকে আমাদের পূর্ণ নিয়ম মাফিক ও গুরুত্বসহকারে সম্পন্ন করতে হবে। আমার ধারণা মতে এটা একটা বড় কাজ। কোন বড় কাজ অঙ্গিকার সহকারে করা চাই, অঙ্গিকারও, আল্লাহর দরবারে দো‘আ-প্রার্থনাও। আসুন, আগামীতে যে কাজটি করবো, তা অঙ্গিকারের সাথে করি!

অঙ্গীকার
আ‘ঊযু বিল্লাহি মিনাশ্ শায়ত্বানির রাজীম। বিস্মিল্লাহির রাহমানির রাহীম। হে আল্লাহ্! আমি আজ অঙ্গীকার করছি যে, দ্বীনের উন্নতি, হুযূর-ই করীম সাল্লাল্লাহু তা‘আলা আলায়হি ওয়াসাল্লাম-এর শান-ই আক্বদাসের উন্নতি এবং আক্বীদার সংরণের জন্য যেই যিম্মাদারী গাউসিয়া কমিটির প থেকে আমাদেরকে অর্পন করা হয়েছে, ও হবে, গাউসিয়া কমিটির প্রোগ্রাম অনুসারে (সেটা) এ অপরিহার্য কাজ আমি পালন করবো। হযরাত, হুযূর করীম সাল্লাল্লাহু তা‘আলা আলায়হি ওয়াসাল্লাম এবং আল্লাহ্ তা‘আলার দরবারে আমাদের প্রার্থনা- হুযূর করীমের ওসীলায় আল্লাহ্ তা‘আলা আমাদের পথ প্রদর্শন করুন!
এ অঙ্গীকার পূরণ করবো, দিনরাত এর জন্য মেহনত করবো এবং প্রয়োজন অনুসারে সঠিক পথে, সিরাতে মুস্তাক্বীমের উপর অটল থাকার জন্য হযরাতের প থেকে যে দায়িত্ব অর্পণ করা হবে, তা আমি যথাযথভাবে পালন করবো।
আল্লাহ্ তা‘আলা আমাদের সাহায্য, মদদ ও দৃঢ়তা দান করুন! আর হুযূর করীম সাল্লাল্লাহু তা‘আলা আলায়হি ওয়াসাল্লাম-এর দয়া ও ‘শাফা‘আত-ই ক্বুব্রা’ নসীব করে ধন্য করুন! আমীন!!

শেয়ার
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •